রাস্তা বন্ধ করে পাকা দেয়াল নির্মাণ, অবরুদ্ধ কয়েকটি পরিবার

বিজ্ঞাপন

লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা উপজেলার নওদাবাস এলাকায় চলাচলের রাস্তা বন্ধ করে দিয়ে পাকা দেয়াল নির্মাণ করার অভিযোগ উঠেছে। সোমবার (৪ অক্টোবর) সন্ধ্যার পরে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন হাতীবান্ধা থানার ওসি এরশাদুল আলম। এর আগে ৩০ সেপ্টেম্বর বৃহস্পতিবার সকাল ১১টার দিকে নওদাবাস ইউনিয়নের কালীবাড়ির শ্রীশ্রী রাধাগোবিন্দ মন্দিরের পাশে এ ঘটনা ঘটে।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, নওদাবাস ইউনিয়নের ৮ নং ওয়ার্ডের কালীবাড়ি এলাকার শ্রীশ্রী রাধাগোবিন্দ মন্দিরে পাশে চলাচলের জন্য ২০/০২/১৯ সালে ৬৩৭ নং দলিলে ২ শতাংশ জমি ক্রয় করেন, বসন্ত কুমার (৬৪), রঞ্জিত চন্দ্র বর্মন (৩৪), রতনেশ্বর বর্মন (৫০) ও রঞ্জিত চন্দ্র বর্মন (৪৬)। তখন থেকে ঐ রাস্তা দিয়ে তারা চলাচল করে আসছে।

এমতাবস্থায় হঠাৎ করে ৩০ সেপ্টেম্বর সকাল ১১টার দিকে সেই রাস্তা বন্ধ করে দিয়ে পাকা দেয়াল নির্মাণ করেন রতনেশ্বর বর্মন। তা দেখে বসন্ত কুমার ও রঞ্জিত চন্দ্র বর্মন বাধা দিতে গেলে অভিযুক্ত রতনেশ্বর বর্মন তাদের বিভিন্ন প্রকার হুমকি দেয় এবং তার ক্ষমতাবলে সে রাস্তা বন্ধ করে পাকা দেয়াল নির্মাণ করবেই বলে জানায়। ফলে প্রায় অবরুদ্ধ হয়ে পড়ে কয়েকটি পরিবার। বন্ধ হয়ে যায় শতশত লোকের যাতায়াতের একমাত্র রাস্তাটি।

আরো পড়ুন :
কাঁদলে চোখ থেকে পানি নয়, ঝরে পাথর
কুড়িগ্রামে ২৪ হাজার মানুষের ১ চিকিৎসক

এবিষয়ে বসন্ত কুমার বিভিন্ন জনকে মৌখিক বিচার দিলে কেউ এগিয়ে না আসায় অবশেষে ৩ অক্টোবর রাতে রতনেশ্বর বর্মনের বিরুদ্ধে হাতীবান্ধা থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছে। এদিকে থানায় ও সাংবাদিককে অভিযোগ দেয়ায় ক্ষিপ্ত হয়েছে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি। ফলে বিষয়টি দ্রুত সমাধান না হবার আশংকা দেখা দিয়েছে।

এবিষয়ে কথা হলে অভিযুক্ত রতনেশ্বর বর্মন বলেন, আমি তাদের চলাচলের কোন রাস্তা বন্ধ করিনি। আমার সীমানায় পাকা ওয়াল নির্মাণ করতে গেলে তারা বাধা দেয়। এর প্রেক্ষিতে নওদাবাস ইউনিয়নের ৮ নং ওয়ার্ড সদস্য খোকা মিয়া বলেন, বিষয়টি জানার পর আজকে বসে মিমাংসা করে দেয়ার কথা ছিলো। সকাল থেকে প্রচুর বৃষ্টি হওয়ায় বসা হয়নি। এখনি ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখতেছি।

হাতীবান্ধা থানার অফিসার্স ইনচার্জ (ওসি) এরশাদুল আলম বলেন, এবিষয়ে একটা লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। ঘটনার বিষয়ে তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

অক্টোবর ০৪.২০২১ at ২২:২৪:০০ (GMT+06)
দেশদর্পণ/আক/কাআখো/রারি