ওমিক্রন রুখতে যেসব খাবারে নজর দেওয়া প্রয়োজন

বিজ্ঞাপন

দাপিয়ে বেড়ানো করোনার নতুন নতুন ভ্যারিয়েন্টে নাজেহাল বিশ্বব্যাপী। বর্তমানে দেশে করোনার সংক্রমণ আবারও ঊর্ধ্বমুখী। করোনায় মৃত্যু, নতুন রোগী ও নমুনা পরীক্ষার বিপরীতে রোগী শনাক্তের হার সবই বাড়ছে। ইতিমধ্যে করোনার নতুন ভ্যারিয়েন্ট ওমিক্রন শনাক্ত হওয়ার পর মানুষের মধ্যে ব্যাপকভাবে সচেতনতা বৃদ্ধি পেয়েছে। সেক্ষেত্রে পুষ্টিকর খাবারের দিকে নজর দেওয়া সবার আগে প্রয়োজন।

অধিক পরিমাণে ভিটামিন ও মিনারেলসমৃদ্ধ খাবার গ্রহণ করতে হবে। শরীর থেকে টক্সিন দূর করতে ভিটামিন ও মিনারেলের প্রয়োজনীয়াতা অপরসীম। সেক্ষেত্রে ডাবের পানি, কমলালেবুর রস এবং সাধারণ পানির কোনো বিকল্প নেই।

এছাড়া প্রোটিন সমৃদ্ধ খাবার গ্রহণের মাত্রা বাড়াতে হবে। প্রোটিন ক্ষতিগ্রস্ত কোষ মেরামত সহযোগীতা করে এবং ইমিউনিটি বাড়ায়। এক্ষেত্রে বাদাম, ডাল, মাংস, মাছের মতো প্রোটিনযুক্ত খাবার গ্রহন করতে হবে। আর মসলা হিসেবে তুলসী, আদা, গোলমরিচ, লবঙ্গ ও রসুন শীতকালে সর্দি-কাশি প্রতিরোধে সহায়তা করে ।

আরো পড়ুন:
মাঠে নেই প্রশাসন, কেউ মানছে না স্বাস্থ্যবিধি
যেসব ভুলে আবারও করোনায় আক্রান্ত হতে পারেন

করোনা প্রতিরোধে ভিটামিন-ডি সমৃদ্ধ খাবার অত্যন্ত কার্যকর যেমন মাশরুম, ডিমের কুসুম, দুগ্ধজাত খাবার। ইমিউনিটি বাড়ানোর জন্য ভিটামিন-সি সমৃদ্ধ খাবার গুরুত্ব অপরসীম। করোনায় আক্রান্ত হলে লেবু জাতীয় ফল, সবুজ শাক-সবজি , পেয়ারা, ব্রকোলি খাওয়া অত্যন্ত কার্যকর।

আর পুষ্টি বিশেষজ্ঞদের মতে, করোনাকালীন সময়ে জিঙ্ক সমৃদ্ধ খাবার খাওয়া অত্যন্ত জরুরি। সেজন্য কুমড়ার বীজ, কাবলি চানা, জিঙ্কযুক্ত মাছ খাদ্য তালিকায় রাখতে হবে। এতে শরীরে প্রয়োজনীয় মাইক্রোনিউট্রিয়েন্ট অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট যোগান দেয়া সম্ভব।

জানুয়ারি ১৪.২০২২ at  ১৬:১০:০০ (GMT+06)
দেশদর্পণ/আক/সনি/মরই