পঞ্চম মহাসাগরের সন্ধান!

বিজ্ঞাপন

ছোটবেলা থেকেই জানা আছে, পৃথিবীতে আছে ৭টি মহাদেশ আর ৪টি মহাসাগর। আমাদের জলবেষ্টিত পৃথিবীর ৭০ শতাংশের বেশিই সমুদ্র। মহাকাশ থেকে পৃথিবীকে দেখলে মনে হয় পৃথিবী নীল রং দিয়ে আবিষ্ট।

পৃথিবীতে স্বীকৃত মহাসাগর চারটি। ভারত মহাসাগর, প্রশান্ত মহাসাগর, আটলান্টিক মহাসাগার ও আর্কটিক মহাসাগর। বিজ্ঞানীরা বলছেন, পাওয়া গেছে পঞ্চম মহাসাগর। বিশ্ব সমুদ্র দিবসে ন্যাশনাল জিওগ্রাফি ঘোষণা দিয়েছে আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দিয়েছে, পঞ্চম মহাসাগর দক্ষিণ মহাসাগরের।

ন্যাশনাল জিওগ্রাফি বলছে, দক্ষিণ মহাসাগরের জলভাগ অ্যান্টার্কটিকা ঘিরে আছে। বিজ্ঞানীরা দক্ষিণ মহাসাগরের অস্তিত অনেক আগেই পেয়েছিল, কিন্তু আন্তর্জাতিক কোনো স্বীকৃতি ছিল না।

ন্যাশনাল জিওগ্রাফির বিজ্ঞানী জানান, এই সাগরের হিমশৈলগুলো অনেক বেশি নীলাভ, এখানকার বাতাস আরও বেশি শীতল। এ মহাসাগরের আশপাশের পর্বতগুলো ভয়ংকর, প্রকৃতি এখানে অনেক বেশি সুন্দর।

অন্যান্য মহাসাগরগুলো যে মহাদেশ বেষ্টিত, সেটা দিয়েই পরিচিত। কিন্তু এ মহাসাগর স্রোতের কারণে অন্য মহাসাগর থেকে আলাদা। দক্ষিণ মহাসাগর পানির প্রবাহ ঠিক রেখে সমুদ্রের জলবায়ু স্বাভাবিক রাখতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে।

বিশ্ব উষ্ণায়নের এই ঝূঁকিপূর্ণ সময়ে এই মহাসাগরের স্বাভাবিক প্রবাহ স্থিতিশীল রাখতে কাজ করছে ন্যাশনাল জিওগ্রাফির বিজ্ঞানীরা।

দ্য অ্যান্টার্কটিক সারকামপোলার কারেন্ট পরিচিতি পায় কোটি বছর আগে। সে সময় দক্ষিণ আমেরিকা ভূখণ্ড থেকে আলাদা হয়েছে অ্যান্টার্কটিকা। এই অঞ্চলের পানি অ্যান্টাকটিকার পশ্চিম থেকে পূর্বে প্রবাহিত হয় দক্ষিণ মহাসাগর ঘেষে। এ অঞ্চল তুলনামূলক বেশি ঠান্ডা আর কম লবণাক্ত।

অন্যান্য সমুদ্রের স্রোতের চেয়ে এই স্রোত অনেক বেশি পানিপ্রবাহে সহযোগিতা করে। ভারত, প্রশান্ত, আর আটলান্টিক মহাসাগরের পানিপ্রবাহেও ভূমিকা রাখে এই দ্য অ্যান্টার্কটিক সারকামপোলার কারেন্ট। পৃথিবীতে তাপমাত্রা স্থিতিশীল রাখতে সহায়তা করে।

দক্ষিণ মহাসাগর সম্পর্কে অনেক দেশ আর সংস্থা জানত কিন্তু এটি আসলে কোথায় অবস্থিত সে বিষয়ে জানতেন না অনেকেই। দীর্ঘদিন ধরেই এই বিষয়টি নিয়ে তর্ক ছিল। অ্যান্টার্কটিকার চারপাশে বিপুল জলরাশিকে মহাসাগর হিসেবে ঘোষণা করতে হবে।

আরো পড়ুন:
কঠোর লকডাউনের আগে সড়কে ব্যক্তিগত গাড়ির চাপ
শিবগঞ্জে গ্রাম পুলিশের মাঝে সাইকেল ও পোশাক বিতরণ

২০০০ সালে প্রথম এই মহাসাগরের সীমানা চিহ্নিত করা হয়। কিন্তু সব দেশের সম্মতি না মেলায় এদিন মহাসাগরের স্বীকৃতি অধরাই ছিল। অবশেষে মিলল সেই কাঙ্ক্ষিত স্বীকৃতি।