তাড়াইলে নিয়ন্ত্রণহীন ভোজ্য তেলের বাজার

সয়াবিন তেল। ফাইল ছবি

কিশোরগঞ্জের তাড়াইলে লিটারে বিক্রি হচ্ছে না সয়াবিন তেল। খোলা সয়াবিন তেল বিক্রি হচ্ছে ২১০ টাকা কেজিতে। কিছু দোকানে এক লিটার দুই এক পিস সয়াবিন তেলের বোতল থাকলেও তা গায়ের মূল্য থেকে বেশি দামে বিক্রি করছে অসাধু ব্যাবসায়ীরা।

সরেজমিনে দেখা যায়, তাড়াইল উপজেলার সাতটি ইউনিয়নের সকল বাজার থেকে বোতলজাত সয়াবিন তেল উধাও হয়ে গেছে। সরকার নির্ধারিত ১৯৮ টাকা লিটারে মিলছে না সয়াবিন তেল। শুধু খোলা সয়াবিন তেল পাওয়া যাচ্ছে তাও আবার ২১০ টাকা কেজি দরে। প্রশাসনের চোখের সামনে এ অবস্থা চললেও প্রসাশন নিরব ভুমিকায় রয়েছে। সাধারণ খেটে খাওয়া মানুষেরা পরেছে চরম ভোগান্তিতে।

তাড়াইল সদর বাজারের মনোহারি ব্যাবসায়ী আল আমিনসহ আরো অনেকের সাথে কথা হলে তারা বলেন, আমরা পাইকারি ভাবে সয়াবিন তেল কিনছি ২০২ টাকা কেজি দরে। আমরা কেমনে সরকার নির্ধারিত দামে তেল বিক্রি করব। বাজারের কোথাও কোনো ছোট, বড় দোকানে বোতল জাত সয়াবিন তেল নেই কারন কি জানতে চাইলে দোকানিরা বলেন, আমাদেরকে কোনো কোম্পানি বোতল জাত তেল দেয়না তাই আমরাও বিক্রি করতে পারছিনা।

আরো পড়ুন :
রাণীশংকৈলে পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় দু’জনের মৃত্যু
কোটচাঁদপুরে খাদ্য গোডাউনের কর্মকর্তার বিদায়ী সংবর্ধনা

নাম প্রকাশ না করার শর্তে আরেক দোকানী জানান, যখন তেলের দাম বেড়ে গেছে তখন আমরা বোতলের তেল খুলে খোলা তেলের সাথে বিক্রি করে দিয়েছি দামও ভাল পেয়েছি।

তাড়াইল সদর বাজারে সয়াবিন তেল কিনতে আসা মাসুদ মিয়া, আবদুল কাদির ও ফয়জুল করিম বলেন, যে কোনো বস্তু রান্না করতে প্রয়োজন হল সয়াবিন তেল। আমাদের আয়ের উৎস সামান্য। এত দামে সয়াবিন তেল ক্রয় করাটা সত্যিই আমাদের পক্ষে সম্ভব হচ্ছে না। সিন্ডিকেট ব্যাবসায়ীদের কবল থেকে আমাদের উদ্ধার করার জন্য প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।

এবিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার লুবনা শারমিন এর সাথে কথা হলে তিনি বলেন, জাতীয় ভোক্তা অধিকার আইনে অতিদ্রুত বাজার তদারকি করব।

মে ১২,২০২২ at ২১:৫৫:০০ (GMT+06)
দেশদর্পণ/আক/রআ/রারি