সিলেটে ভারতীয় মেগা সিরিয়াল সিআইডি দেখে ডাকাতি

ছবি: সময় টিভি
বিজ্ঞাপন

ভারতীয় মেগা সিরিয়াল সিআইডি দেখে ডাকাতির সিদ্ধান্ত। টার্গেট বেসরকারি ব্যাংকের বুথ। মিশন শুরুর আগে চলে কয়েক দফা জায়গা চিহ্নিত (রেকি) কার্যক্রম। পরে পেশাদার চার জুয়াড়ি গভীর রাতে হানা দেয় বুথে। লুট করে নিয়ে যায় ২৫ লাখ টাকার মতো। ঘটনায় জড়িত চক্রের তিন সদস্যকে গ্রেপ্তারের পর এসব তথ্য জানিয়েছেন গোয়েন্দারা।

চলতি মাসের ১২ তারিখ। সিলেটের ওসমানী নগরের একটি বেসরকারি ব্যাংকের বুথ। রাত ৩ টা ১৫ মিনিটের দিকে কিছু একটা আওয়াজ পেয়ে নিরাপত্তারক্ষী এগিয়ে আসেন বুথটির প্রবেশমুখে। আগে থেকেই বাইরে ওত পেতে থাকা ডাকাত দল তাকে ধাক্কা মেরে ঢুকে পড়েন ভেতরে।

প্রথমেই স্কচটেপ দিয়ে বেঁধে ফেলেন নিরাপত্তারক্ষীকে। পরে চার মুখোশধারী ডাকাত দল বুথ ভেঙ্গে প্রায় ২৪ লাখ ২৫ হাজার ৫০০ টাকা ডাকাতি করে পালিয়ে যায়। বুথ ভাঙার আগে সিসি ক্যামেরায় কালো রংয়ের স্প্রে মেরে দেয় ডাকাতরা। যেন ছবিতে ধরা না পড়ে ডাকাতির ঘটনা।

ঘটনার পরপরই ব্যাংক কর্তৃপক্ষ মামলা দায়ের করেন। ৯ দিন পর ডিবির সাইবার অ্যান্ড স্পেশাল ক্রাইম বিভাগ ঢাকা ও হবিগঞ্জে অভিযান চালিয়ে গ্রেপ্তার করেছে ডাকাত দলটির ৩ সদস্যকে। উদ্ধার করা হয়েছে ১০ লাখ ৮ হাজার টাকা।

গোয়েন্দারা বলছে, ডাকাতির পরিকল্পনা করা হয় কয়েক মাস আগে। দফায় দফায় চলে রেকি। ডাকাত দলের সর্দার শামীম ভারতীয় মেগা সিরিয়াল সিআইডি দেখে অনুপ্রাণিত হয়ে ডাকাতির পরিকল্পনা করে। দলে ভেড়ায় আরও তিন সদস্যকে।

আরো পড়ুন:
আবেদন করলেই মৃত থেকে জীবিত হওয়া যাবে
জোয়ান খেলে সারবে ১৫ টি আশ্চর্য রোগ

ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (উত্তর) যুগ্ম কমিশনার মোহাম্মদ হারুন অর রশিদ বলেন, মূল আসামি শামীম আহমেদ এ ঘটনার পরিকল্পনা করে কারণ, সে এ বিষয়ে অনেক দক্ষ। সে মাঝে মাঝে ইন্ডিয়ান যে সিরিয়াল সিআইডি দেখত। সিরিয়ালে সে দেখত কিভাবে অপরাধ করতে হয় এবং অপরাধ করে কিভাবে পার পাওয়া যায়।

পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী মুখের মাস্ক, মাথায় ব্যবহারের জন্য গোলাপি রংয়ের কাপড় ও বিশেষ ক্যাপ সংগ্রহ করে। পরে সারারাত পর্যবেক্ষণের পর ঠিক ভোর হওয়ার আগে ঝাপিয়ে পড়ে মিশনে।

তিনি আরও বলেন, এটিই বাংলাদেশে প্রথম যে এটিএম এ ঢুকে শাবল দিয়ে ভেঙ্গে টাকা লুট করে নিয়ে যাওয়া।

ডাকাতিতে জড়িত বাকি সদস্যকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা করছে পুলিশ।

সেপ্টেম্বর ২২.২০২১ at ১৬:২৪:০০ (GMT+06)
দেশদর্পণ/আক/সনি/জআ