এক বছর চলে গেলেও পূর্বধলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ঠিকাদার নিয়োগ দেয়া সম্ভব হয়নি

২০২২-২৩ অর্থবছর শেষ হয়ে গেলেও নেত্রকোনার পূর্বধলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স কর্তৃপক্ষ কোন অদৃশ্য কারণে এখন পর্যন্ত ঠিকাদারই নিয়োগ দিতে পারেনি।

রহস্যজনক কারণে রোগীদের খাদ্যদ্রব্য, কাপড় ধোলাই ও স্টেশনারি সরবরাহের জন্য জাতীয় দৈনিকে ঠিকাদার নিয়োগের জন্য বিজ্ঞপ্তি দিলেও এখন পর্যন্ত ঠিকাদার নির্বাচন করতে পারেননি টেন্ডার কমিটির সভাপতি।

আরো পড়ুন :

> জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে খালেদা জিয়া: মির্জা ফখরুল
> কোরবানির ঈদের ছুটি চার দিন করার সুপারিশ

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের টেন্ডার মূল্যায়ন কমিটির সভাপতি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এর পরিবার-পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আবু হাসান শাহীন গত বছরের ২০ নভেম্বর দরপত্র আহবান করেন। পরে দরপত্র আহ্বানের জন্য গত ২১ নভেম্বর জাতীয় পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি দেয়া হয়।

বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী সমস্ত নিয়ম মেনে গত বছরের ১৩ ডিসেম্বর নির্ধারিত সময়ের মধ্যেই ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানগুলো দরপত্র জমা দেয়। বিধি অনুযায়ী ওই দিনই দরপত্র খোলার কথা ছিল। কিন্তু কোন অদৃশ্য কারণে ২০২২-২৩ অর্থবছর শেষ হয়ে গেলেও এখন পর্যন্ত দরপত্রের ঠিকাদার নিয়োগ করা হয়নি। ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানগুলো পরিবার-পরিকল্পনা কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ৬ মাসও টেন্ডার নিষ্পত্তি না হওয়া, বিশেষ ব্যক্তিকে সুবিধা দিতে কিছু ঠিকাদারকে তাদের পে-অর্ডার ফেরত দেয়া সহ বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগ এনে সিভিল সার্জন বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ করেন।

অভিযোগের ভিত্তিতে সিভিল সার্জন গত ২১ মে পরিবার-পরিকল্পনা কর্মকর্তাকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেন। ঠিকাদার নিয়োগ না হওয়ার কারণ জানতে চাইলে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আবু হাসান শাহীন বলেন, কাগজপত্রগুলো যাচাই-বাছাই করতে সময় লেগেছে। দরপত্র প্রথমে সিভিল সার্জন অফিসে পাঠানো হয়েছে সেখান থেকে ডিডি (ময়মনসিংহ) অফিসে পাঠানো হয়েছে ওইখান থেকে আবার এখানে এসেছে। এই সমস্ত কাজ করতে করতে সময় শেষ হয়ে গেছে। দরপত্র বাতিল করা হয়েছে।

কেন বাতিল করা হয়েছে এই প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, নির্ধারিত সময় শেষ যাওয়ায় দরপত্র বাতিল করা হয়েছে। খুব শীঘ্রই পুনরায় দরপত্র আহবান করা হবে।

জুন ১৩, ২০২৩ at ২০:৪৪:০০ (GMT+06)
দেশদর্পণ/আক/রিকাগু/ইর