ডিএনসিসিতে ১০০ ফুড কার্ট

রোববার (১১ জুন) আগারগাঁও বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে আয়োজিত ঢাকা ফুড অ্যাজেন্ডা ২০৪১ শীর্ষক এক অনুষ্ঠানে এ কথা জানান ডিএনসিসি মেয়র আতিকুল ইসলাম।

মেয়র বলেন, ডিএনসিসি এবং বাংলাদেশ পর্যটন কর্পোরেশন যৌথভাবে ফুড স্ট্রিটের (খাবারের রাস্তা) জন্য কাজ করছে। বিভিন্ন জেলার ঐতিহ্যবাহী বিখ্যাত খাবার থাকবে ঢাকার ফুড স্ট্রিটে। আমাদের লক্ষ্য ঢাকায় মানুষকে বিভিন্ন জেলার ঐতিহ্যবাহী খাবারের স্বাদ গ্রহণের সুযোগ দেওয়া।

আরো পড়ুন :

> নান্নু সভাপতি, মকবুল সম্পাদক গাবতলী গৃহ নির্মাণ শ্রমিক কল্যাণ উপ-পরিষদের নির্বাচন সম্পন্ন
> শিবগঞ্জ সমিতির ছাগল পেল ২০টি অসহায় পরিবার

তিনি বলেন, ঢাকা উত্তর সিটিতে ১৩টি সরকারি প্রতিষ্ঠান, ১২টি ব্যবসায়িক নেটওয়ার্ক, ৫টি বেসরকারি প্রতিষ্ঠান, ১০টি আইএনজিও, ৮টি এনজিও, ১০টি খুচরা দোকান, ৩টি গবেষণা প্রতিষ্ঠান এবং ২টি জাতিসংঘের সংস্থাসহ মোট ৬৩টি খাদ্য ব্যবস্থা সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠান কাজ করছে। ডিএনসিসি সমস্ত বাস্তবায়নকারী অংশীদারদের অবিচ্ছিন্ন সহায়তা এবং প্রশাসনিক সহায়তার পাশাপাশি নির্দেশিকা প্রদান করে যাচ্ছে।

মেয়র আতিকুল বলেন, সংশ্লিষ্ট সকলের সহযোগিতায় ওয়ার্ড কাউন্সিলরদের নেতৃত্বে বিভিন্ন ওয়ার্ডে ৬টি কৃষক বাজার স্থাপন করা হয়েছে। মিরপুর ২, মিরপুর ৬, মিরপুর ৭, আদাবর, মোহাম্মদিয়া হাউজিং সোসাইটি ও লালমাটিয়াতে এসব কৃষকের বাজার রয়েছে। প্রতি শুক্রবার কৃষকের বাজার বসে। যেখানে ঢাকা শহরের পার্শ্ববর্তী এলাকা থেকে চাষীরা আসছেন এবং ক্রেতারা সহজেই তাজা খাবার পাচ্ছেন। কৃষকের বাজারে মধ্যস্বত্বভোগীদের কোনো সম্পৃক্ততা নেই। তাই ক্রেতারা ন্যায্য মূল্যে তাজা খাবার পাচ্ছেন।

মেয়র আরও বলেন, স্বাস্থ্যকর খাদ্য নিশ্চিত করা এবং অবৈধ উচ্চমূল্য নিয়ন্ত্রণ করতে আমরা নিয়মিত মোবাইল কোর্ট ও সচেতনতামূলক প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছি। এছাড়া আমরা বিক্রেতাদের সচেতনতা বাড়াতে নিরাপদ খাদ্য ব্যবস্থাপনার উপর প্রচারণা চালিয়েছি।

ডিএনসিসি হলিডে মার্কেট চালুর কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, আগারগাঁও আইসিটি রোডের ডিএনসিসি হলিডে মার্কেটে অনেক সুস্বাদু খাবার পাওয়া যায়। প্রতি শুক্র ও শনিবার সন্ধ্যায় সেখানে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানও উপভোগ করছেন মানুষ। মানুষের নিরাপদ খাবার নিশ্চিত করতে আমরা এমন নানান পদক্ষেপ গ্রহণ করেছি।

অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন- স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী তাজুল ইসলাম, ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস, স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের সচিব মুহম্মদ ইব্‌রাহিম প্রমুখ।

জুন ১১, ২০২৩ at ১৫:২২:০০ (GMT+06)
দেশদর্পণ/আক/মোরইমি/ইর