আঙুরের পর ড্রাগন চাষে সাফল্য পাওয়ার দারপান্তে চৌগাছার কৃষক রুহুল আমিন

আঙুরের পর ড্রাগনে সাফল্য পাওয়ার দারপান্তে যশোরের চৌগাছার কৃষক রুহুল আমিন।ইতি মধ্যে অনেকেই তাকে অনুসরণ করতে শুরু করেছেন।চৌগাছা পৌরসভার ৩ নম্বর ওয়ার্ডের বেলেমাঠ গ্রামের কৃষক রুহুল আমিন। নিজের জায়গা জমি না থাকলেও পরের জমি লিজ- বর্গা নিয়ে চাষাবাদ করেন। গত কয়েক বছর তিনি অন্য ফসলের চেয়ে ফল চাষে আগ্রহী হয়ে উঠেন। ড্রাগন, কুল আঙুরসহ বেশ কিছু ফলের চাষ করে তিনি সাফল্যও পেয়েছেন। গত বছরে দুই বিঘা জমি হতে ড্রাগন বিক্রি করে ব্যাপক সাফল্য পেয়ে এ বছর তিনি আরও দুই বিঘা জমিতে ড্রাগন চাষ করেছেন। ড্রাগনের পাশাপাশি চাষ করেছেন আঙুুর। মিষ্টি আঙুর চাষে তিনি অন্য যে কোন ফসলের চেয়ে বেশি লাভবান হবেন বলে আশা করছেন।

কৃষক রুহুল আমিনের ড্রাগন বাগানে গিয়ে দেখা যায়, তারার মত সাদা ফুল ফুটে আছে জমিতে। পাতাবিহীন লতা গাছে সাদা ফুল এক অন্য রকম সৌন্দর্য বহন করছে। মৌমাছির গুনগুন শব্দ সেই সৌন্দর্যকে আরও বাড়িয়ে তুলেছে।

আরো পড়ুন :
> সাবেক ছাত্রলীগ নেতার আধিপত্যের অপর নাম মাদক
> ক্ষেতলালে বিশেষ উঠান বৈঠক অনুষ্ঠিত

কৃষক রুহুল আমিন ভোর হতেই জমি পরিচর্জায় ব্যস্ত আছেন। এ সময় কথা এই তরুণ উদ্যোক্তার সাথে। তিনি বলেন, স্বপ্ন আছে বলেই মানুষ বেঁচে থাকে। আমার কোন চাষাবাদের জমি নেই। কিন্তু স্বপ্ন ছিলো আকাশসম। সেই স্বপ্ন বাস্তবায়নে অন্যের জমি লিজ- বর্গা নিয়ে ফল চাষে মনোযোগী হয়ে উঠি। প্রথম বছরেই পাই সাফল্য। যার করণে এ বছর আঙুরের চাষ করার পাশাপাশি আরও দুই বিঘা জমিতে ড্রাগন চাষ করেছি। আগে লাগানো ড্রাগন বাগানে এ বছর প্রচুর ফুল এসেছে। আশা করছি ফলও অনুরুপভাবে আসবে।

কৃষক রুহুল আমিন বলেন, এখন ড্রাগনের ফুল আসার ভরা মৌসুম। প্রতিটি গাছ ফুলে ভরে উঠেছে। ড্রাগনের ফুল মূলত রাতের আঁধারে ফোটে। সূর্যের আলো ওঠা মাত্রই তা বন্ধ হয়ে যায়। এই অল্প সময়ের মধ্যে মৌমাছি ফুলের ওপর যেন হুমড়ি খেয়ে পড়ে। মৌমাছির পরাগয়নের সাথে সাথে আমি নিজেও পুরুষ ফুল দিয়ে পরাগয়ন করি।গত বছরের থেকে চলতি বছরে বেশি টাকার ড্রাগন বিক্রি করতে পারবো বলে আশা করছি।

জুন ১০, ২০২৩ at ১০:০০:০০ (GMT+06)
দেশদর্পণ/আক/মেমই/মেমহ