দেশে ফিরতে পারবেন বিএনপি নেতা সালাহউদ্দিন

ছবি- সংগৃহীত।

ভারতে অনুপ্রবেশ মামলায় মেঘালয়ের শিলং জজ কোর্ট থেকে খালাস পাওয়ায় বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য সালাহউদ্দিন আহমেদ যেকোনো সময় দেশে ফিরতে পারবেন বলে জানিয়েছে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

পাশাপাশি, ভারতের নতুন সংসদ ভবনে ম্যুরালের মাধ্যমে ‘অখণ্ড ভারতের’ মানচিত্রে কয়েকটি দেশের সঙ্গে বাংলাদেশকে দেখানো হয়েছে। এর পরিপ্রেক্ষিতে দিল্লির বাংলাদেশ মিশন ভারতীয় কর্তৃপক্ষের কাছে ব্যাখ্যা চেয়েছে।

আরো পড়ুন :

> ১৮৫ ঘন্টা পর শর্ত সাপেক্ষে অনশন ভাঙলেন প্রত্যয়
> দুই দফা দাবিতে জাবি শিক্ষার্থীদের সংবাদ সম্মেলন

জবাবে নয়াদিল্লি জানিয়েছে, সম্রাট অশোকের রাজ্যের ব্যাপ্তি বোঝাতে ম্যুরালটি স্থাপন করা হয়েছে।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জনকূটনীতিক শাখার মহাপরিচালক (ভারপ্রাপ্ত) রফিকুল ইসলাম সাপ্তাহিক ব্রিফিংয়ে বৃহস্পতিবার এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

রফিকুল ইসলাম আরও বলেন, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সালাহউদ্দিন আহমেদের দেশে ফেরার আবেদন মঞ্জুর করেছে। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এ বিষয়ে ভারতের আসাম রাজ্যের গৌহাটিতে বাংলাদেশ মিশনের সঙ্গে যোগাযোগ করেছে।

সালাহউদ্দিন কবে দেশে ফিরতে পারবেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, এটা তার ওপর নির্ভর করবে। তিনি যেকোনো সময় দেশে ফিরতে পারবেন।

রহস্যজনকভাবে রাজধানী ঢাকায় নিখোঁজ
২০১৫ সালের ১০ মার্চ ঢাকা থেকে নিখোঁজ হন বিএনপি নেতা সালাহউদ্দিন। পরবর্তীতে ভারতের মেঘালয় রাজ্যের শিলংয়ে ‘উদ্দেশ্যহীন ভাবে ঘোরাফেরা’ করার সময় ওই বছরের ১১ মে তাকে আটক করে শিলং পুলিশ। তার নামে অবৈধ অনুপ্রবেশের মামলা করা হয়। তিনি শিলং পুলিশকে জানান, গোয়েন্দা পরিচয়ে ২০১৫ সালের ১০ মার্চ তাকে তার উত্তরার বাসা থেকে তুলে নেয়া হয়। একটি প্রাইভেটকারে তাকে শিলং নেয়া হয়। কিন্তু গাড়িটি কোথা থেকে ছেড়েছিল বা গাড়িতে আর কে বা কারা ছিলেন তা তিনি বলতে পারেননি।

উল্লেখ্য, ২০০১ সালে কক্সবাজার থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন সালাহউদ্দিন। তিনি বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের যোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী ছিলেন।মেঘালয়ে যখন আটক হন তখন তিনি বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব ছিলেন। ভারতের জেলে থাকাকালে বিএনপি তাকে দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য করে। ২০১৮ সালের ২৬ অক্টোবর অবৈধ অনুপ্রবেশের মামলা থেকে তাকে খালাস দেন ভারতের একটি আদালত। সে সময় তিনি বলেছিলেন, ‘আমি ন্যায় বিচার পেয়েছি। দ্রুত দেশে ফিরে যেতে চাই।’

জুন ০৮, ২০২৩ at ২০:৩৪:০০ (GMT+06)
দেশদর্পণ/আক/দেপ্র/ইর