ভাঙ্গুড়ায় ধান উৎপাদন ব্যয় কমাচ্ছে পার্চিং পদ্ধতি

পাবনার ভাঙ্গুড়ায় কৃষকরা ধান ক্ষেতে কীটনাশক ব্যবহার না করে পোকা দমন করছেন। ক্ষেতের ক্ষতিকারক পোকা দমনে বাঁশের কঞ্চি বা গাছের ডাল পুঁতে পাখি বসানোর ব্যবস্থা করছেন। আর এ পদ্ধতিকে বলা হয় পার্চিং। উপজেলাতে দিন দিন এই প্রাচীন পদ্ধতিতে ধান চাষ জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। ফলে প্রাকৃতিক পরিবেশ ঠিক থাকার পাশাপাশি ধানের উৎপাদন ব্যয় কমে আসছে বলে জানা গেছে।

ভাঙ্গুড়া উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, বিগত বছর গুলোতে পার্চিং পদ্ধতিতে বোরো আবাদে সফলতা পাওয়ায় এলাকার কৃষকেরা এবারও এই পদ্ধতির দিকে ঝুঁকেছেন। চলতি মৌসুমে উপজেলার ৬টি ইউনিয়নসহ একটি পৌরসভায় ৬ হাজার ২৩৫ হেক্টর জমিতে বোরো ধান চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। আর আবাদ করা জমির পরিমাণ ৬৪৫০ হেক্টর। যার মধ্যে শতকরা ৮০ ভাগ জমি পার্চিং পদ্ধতির আওতায় আনা হয়েছে।

আরো পড়ুন :
শার্শা মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের শতাধিক শিক্ষার্থীদের স্কুল ড্রেস দিলেন শেখ আফিল উদ্দিন এমপি
ঢাকা কলেজ শিক্ষার্থীদের উপর বর্বরোচিত হামলার প্রতিবাদে জাবিতে মানববন্ধন

উপজেলার খানমরিচ ইউনিয়নের ময়দানদিঘী গ্রামের মেহেদী হাসান বলেন, এ বছর তিনি নয় বিঘা জমিতে বোরো ধানের আবাদ করেছেন। বিগত বছর গুলোতে ধানক্ষেতে কীটনাশক না দিয়ে পার্চিং পদ্ধতিতে পোকা দমনে সফলতা পাওয়ায় এ বছরও তিনি এই পদ্ধতি অনুসরণ করেছেন।

ভাঙ্গুড়া উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ এনামুল হক দৈনিক দেশ দর্পণ পত্রিকা কে বলেন, কীটনাশক ব্যবহার ছাড়াই ধানক্ষেতের ক্ষতিকর পোকা দমনের একটি প্রাকৃতিক পদ্ধতি হচ্ছে পার্চিং। এ পদ্ধতিতে খেতে পাখি বসানোর ব্যবস্থা করে পোকা দমন করা যায়। উপজেলার কৃষকদের পার্চিংয়ে উদ্বুদ্ধ করতে মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের নির্দেশ দেওয়া আছে বলেও জানান তিনি।

এপ্রিল ২০.২০২১ at ২০:০০:০০ (GMT+06)
দেশদর্পণ/আক/সাহো/রারি