যশোরে ছুরিকাঘাতে যুবলীগের ৫ কর্মী আহত

যশোরে পৃথক ছুরিকাঘাতে পাঁচজন যুবলীগ কর্মী আহত হয়েছেন। বুধবার (১ ডিসেম্বর) দুপুরে শহরের ঝালাইপট্টি ও ঈদগাহ মোড়ে এই ঘটনা ঘটে। জেলা যুবলীগের বর্ধিত সভাকে কেন্দ্র করে তারা শহরে আসেন।
আহত রাসেল হোসেন (১৭), হ্যাপি (১৯), খায়রুল (২০), টিটু (১৮) ও আকিবুলকে যশোর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
আহত রাসেল হোসেন শহরতলীর ঝুমঝুমপুর বালিয়াডাঙ্গা গ্রামের মোরাদ হোসেনের ছেলে। হ্যাপি শহরের আরএন রোডের শফি মিয়ার ছেলে। খায়রুল শহরতলীর বিরামপুর গ্রামের রবিউলের ছেলে। টিটু হামিদপুর গ্রামের রেজাউলের ছেলে ও আকিবুল চুড়াৃমনকাঠি গ্রামের শহিদুল ইসলামের ছেলে।
আহত রাসেল অভিযোগ করে বলেন, সকালে যুবলীগের বর্ধিত সভায় মিছিল নিয়ে শহরের চিত্রার মোড়ে আওয়ামী লীগের অফিসের সামনে আসছিলাম। মিছিল শেষে বাড়ি ফেরার পথে ঝালাইপট্টি পৌছালে হ্যাপি তার লোকজন নিয়ে আমাকে ছুরিকাঘাত করে। স্থানীয়দের সহযোগিতায় হাসপাতালে আসি।
আহত হ্যাপি অভিযোগ করে জানায়, রাসেলকে ছুরি মেরেছে আমার জানা নাই। যুবলীগের মিছিল শেষে রাসেল লোকজন নিয়ে আমাকে ছুরি মেরে আহত করেছে। স্থানীয়রা আমাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে আসেন।
একই ঘটনায় খায়রুলকে ঈদগার মোড়ে, টিটুকে মুসলিম একাডেমি স্কুল ও ইকিবুলকে টাউন হল ময়দানে ছুরিকাঘাত করে আহত করা হয়। তারা জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।
আহত টিটো জানান, ইয়াসিন, সানি, রাসেল, আকাশ, কালো পলাশ, ফারাজির নেতৃত্বে তাদের ছুরিকাঘাত করা হয়েছে। তারা শফিকুল ইসলাম জুয়েলের সাথে থাকেন।
হাসপাতালের জরুরী বিভাগের ডাক্তার এম আব্দর রশিদ বলেন হ্যাপি, খায়রুল ও আকিবুলের শরীর থেকে রক্তক্ষরণ হচ্ছে। রক্তবন্ধ করা যাচ্ছে না। তিনজন খুবই আশঙ্কাজনক।
জানতে চাইলে কোতোয়ালি থানার ওসি তাইজুল ইসলাম বলেন, আমি ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার বেলাল হুসাইন হাসপাতালে আছি। যুবলীগের জুয়েল ও বিপুল গ্রুপের মধ্যে এই ঘটনা ঘটেছে বলে আমরা জানতে পেরেছি।
বিজ্ঞাপন

ডিসেম্বর ০১.২০২১ at ১৫:২৭:০০ (GMT+06)
দেশদর্পণ/আক/আক/জআ