ভর্তিচ্ছুদের সহযোগিতা করে সুনাম কুড়াচ্ছে জাবির ছাত্রসংগঠন

বিজ্ঞাপন

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে (জাবি) ২০২০-২০২১ শিক্ষাবর্ষের ভর্তি পরীক্ষা চলাকালীন সময়ে ভর্তিচ্ছুদের সহযোগিতায় নানা কার্যক্রম পরিচালনা করে সুনাম কুড়িয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন ছাত্র সংগঠনগুলো।

ছাত্রসংগঠন গুলোর কার্যক্রম নিয়ে কথা বলতে চাইলে নেতা-কর্মীরা দেশদর্পনের সাথে একান্ত সাক্ষাৎকারে তাদের সংগঠনের উদ্দ্যেশ্য ও বাস্তবায়ন পদ্ধতি নিয়ে কথা বলেন।

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে (জাবি) বর্তমানে সক্রিয় ভাবে পরিচালিত ছাত্রসংগঠনগুলো হলো
বাংলাদেশ ছাত্রলীগ, বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল, ছাত্র ইউনিয়ন, সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট ও সাধারণ ছাত্র অধিকার পরিষদ।

ভর্তিইচ্ছুক শিক্ষার্থীদের সহযোগিতা ও নিজেদের সংগঠনে আকৃষ্ট করার জন্যে সংগঠন গুলোর কার্যক্রমগুলো হলো-

বাংলাদেশ ছাত্রলীগঃ
ক্ষমতাশীন ছাত্র সংগঠন হিসেবে জাবিতে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সরব উপস্থিতি লক্ষ্য করা যায়।
সংগঠনটির সদ্য সাবেক উপ-স্কুল ছাত্র বিষয়ক সম্পাদক আরিফুল আলম বলেন, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ সর্বদা শিক্ষার্থী বান্ধব কার্যক্রম পরিচালনা করে যাচ্ছে। এরই ধারাবাহিকতায় আমরা প্রতিবারের ন্যায় এবারো ভর্তি ইচ্ছুক শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন ভাবে সহযোগিতা করে যাচ্ছি। পাশাপাশি, অভিবাবকদের জন্য সহায়তা কেন্দ্র ও তারপাশে বসার ব্যবস্থা করেছি।

সদ্য বিলুপ্ত কমিটিরসহ-সম্পাদক মো. সাইফুল্লাহ বলেন, করোনা মহামারী মোকাবিলায় আমরা শিক্ষার্থীদের সার্জিক্যাল মাস্ক, হ্যান্ড সেনিটাজার বিতরণ ও বিশুদ্ধ পানি সরবরাহ করছি।

তিনি আরো জানান, বেশ কিছু শিক্ষার্থী যারা সময় স্বল্পতার কারনে পরীক্ষার হলে উপস্থিত হতে দেরি হয়ে যাচ্ছে তাদেরকে পরীক্ষার হলে পৌঁছে দিতে “জয় বাংলা বাইক সার্ভিস” প্রদান করছি।

নেতা-কর্মীরা আরও জানান, বিশ্ববিদ্যালয়ের নিরাপত্তার ও শৃঙ্খলা বজায় রাখতেও শাখা ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা ভূমিকা পালন করছেন।

ছাত্রদলঃ
বহুদিন বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্ররাজনীতি থেকে দূরে থাকলেও বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল ভর্তি পরীক্ষার প্রথম দিন ভর্তিচ্ছুক শিক্ষার্থীদের মাঝে ফাইল, কলম, সেনিটাইজার, মাস্ক ও ফুল বিতরণ করেছে।

ছাত্র ইউনিয়নঃ
শিক্ষার্থী বান্ধব পরিবেশ তৈরির লক্ষ্যে ছাত্র ইউনিয়ন জাবি সংসদ কাজ করে যাচ্ছে।

সংগঠনের সভাপতি রাকিবুল হক রনি বলেন, শিক্ষার্থী বান্ধব পরিবেশ তৈরি ও বজায় রাখতে ছাত্র ইউনিয়ন সর্বদা কাজ করে যাচ্ছে। ভর্তিচ্ছুক শিক্ষার্থীদের পূর্বের মতো হলে থাকতে না দেওয়ায় শিক্ষার্থীদের ভোগান্তির চিন্তা মাথায় রেখে আমরা আমাদের সাধ্য মতো সচেতনতার সাথে শিক্ষার্থীদের সাময়িক আবাসনের ব্যবস্থা করেছি।

তিনি আরো জানান, প্রতিবারের মতোই আমরা তথ্য ও সহায়তা কেন্দ্র স্থাপন করেছি যাতে আমরা সরাসরি ভর্তিচ্ছুক শিক্ষার্থীদের সহায়তা করতে পারি।

সাধারন সম্পাদক তাসবিবুল গনি নিলয় বলেন, ভর্তিচ্ছুক শিক্ষার্থীদের তথ্য সহায়তার পাশাপাশি আমরা শহীদ তাজুল বাইক সার্ভিসের মাধ্যমে গড়ে প্রতিদিন ১৫ থেকে ২০ জন শিক্ষার্থীদের পরিবহন সুবিধা দিচ্ছি।

তিনি আরো বলেন, এবার বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় খেলার মাঠে গাড়ি পার্কিং এর ব্যবস্থা না করায় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাধান সড়কে ভিড় কমেছে ও শিক্ষার্থীদের যাতায়াত সহজতর হয়েছে, এতে প্রশাসন অবশ্যই প্রশংসার দাবীদার, তবে প্রশাসনের স্বদিচ্ছা থাকলে ভর্তিচ্ছুক শিক্ষার্থীদের জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের খালি কোয়ার্টার গুলোতে অস্থায়ী আবাসনের ব্যবস্থা করা যেতো।

আরো পড়ুন :
টেস্ট শুরুর আগে দুঃসংবাদ পেল বাংলাদেশ
বুলগেরিয়ায় টুরিস্ট বাস দুর্ঘটনা, আগুন লেগে নিহত ৪৫

সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্টঃ
সামরিক স্বৈরাচারবিরোধী ছাত্র গণআন্দোলনের অগ্নিগর্ভে আত্নপ্রকাশ হওয়া সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট গণমানুষের স্বার্থে শোষণ মুক্ত সমাজ গড়ার লক্ষ্যে সার্বজনীন, বৈষম্যহীন, সেক্যুলার, বিজ্ঞানভিত্তিক, গণতান্ত্রিক শিক্ষার দাবিতে আন্দোলন করে যাচ্ছে। জাবিতে ভর্তি পরীক্ষাকে কেন্দ্র করে ছাত্র ফ্রন্ট, ভর্তিচ্ছুক শিক্ষার্থীদের সহায়তায় কাজ করে যাচ্ছে।

করোনা মহামারী মোকাবেলার কথা উল্লেখ্য করে সংগঠনটির জাবি শাখার সভাপতি শোভন রহমান বলেন, ভর্তিচ্ছুক শিক্ষার্থীদের মাঝে আমরা হ্যান্ড স্যানিটাইজার ও মাস্ক বিতরণ করছি। তাছাড়া এবারে ভর্তিচ্ছুক শিক্ষার্থীদের হলে থাকায় নিষেধাজ্ঞা থাকায় আমরা তাদের জন্য অল্প পরিসরে আবাসনের ব্যবস্থা করেছি।

সংগঠনটির সাধারণ সম্পাদক মো. আবু সাঈদ বলেন, ভর্তিচ্ছুক শিক্ষার্থীদের সহায়তায় আমরা তথ্য ও সেবা দান কেন্দ্র স্থাপন করেছি। এর মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের পরীক্ষার হলের নির্দেশনা দেওয়া ও সাময়িক বিশ্রামের ব্যবস্থা করেছি।

ছাত্র অধিকার পরিষদঃ
ছাত্র অধিকার পরিষদ একটি সদ্য প্রতিষ্ঠিত ছাত্র সংগঠন। সদ্য প্রতিষ্ঠিত হিসেবেও ভর্তিচ্ছুক ছাত্রদের কল্যানে তাদেরও স্বরব উপস্থিতি লক্ষ্য করা যায়।

সংগঠনটির জাবি শাখার সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম বলেন, আমরা বরাবর-ই ছাত্রদের বিভিন্ন সমস্যার সমাধান নিয়ে কাজ করে থাকি। প্রতি বছরের ন্যয় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ভর্তিচ্ছুক শিক্ষার্থীদেরকে সাময়িক ভাবে হলে থাকার নিষেধাজ্ঞা প্রদান করেছে। এসমস্যা সমাধানে আমরা সল্প পরিসরে শিক্ষার্থীদের আবাসনের ব্যবস্থা করেছি। করোনা মহামারী মোকাবিলায় হ্যান্ড সেনিটাইজার, মাস্কসহ ভর্তিচ্ছুক শিক্ষার্থীদের মাঝে কলম, ক্যাম্পাস নির্দেশনা ম্যাপ বিতরণ করেছি। আশা করি পরবর্তিতে আমরা আরো বড় পরিসরে শিক্ষার্থীদের সহায়তা করতে পারবো।

নভেম্বর ২৩.২০২১ at ১৮:১২:০০ (GMT+06)
দেশদর্পণ/আক/নাউ/রারি