টানা চার দিনের ধর্মঘটে প্রায় অচল বেনাপোল বন্দর

বিজ্ঞাপন

জ্বালানি তেলের দাম  প্রতি লিটারে ১৫ টাকা বৃদ্ধির প্রতিবাদে বাংলাদেশ ট্রাক ও কাভার্ডভ্যান মালিক সমিতির ডাকা ধর্মঘটের টানা চার দিনে অচলাবস্থার মধ্যে পড়েছে দেশের সবচেয়ে বড় বেনাপোল স্থলবন্দরের বাণিজ্যিক কার্যক্রম। বন্দরে আটকা পড়া আমদানি, রপ্তানি পণ্য বহন করতে না পারায় বড় ধরনের লোকসানের মুখে পড়েছে ব্যবসায়ীরা। পণ্য পরিবহন বন্ধ থাকায় যেমন ব্যাহত হচ্ছে শিল্প কলকারখানার উৎপাদন প্রক্রিয়া তেমনি সরকারও হারাচ্ছে রাজস্ব।

বন্দর থেকে পণ্য পরিবহন বন্ধ থাকায় অসহায় জীবন যাপন করছে বন্দর শ্রমিক ও ট্রাক চালকরা। সন্তোষজনক সমাধানের মধ্য দিয়ে দ্রুত এ ধর্মঘট প্রত্যাহার চান ভুক্তভোগীরা।

বেনাপোল বন্দর হ্যান্ডলিংক শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক ওহিদুল ইসলাম জানান, ট্রাক কাভার্ডভ্যান ধর্মঘটে টানা ৪ দিন ধরে বেনাপোল বন্দরে পণ্য খালাস বন্ধ রয়েছে। এতে ব্যবসায়ীরা যেমন লোকসানে পড়েছে, তেমনি দিন আনা দিন খাওয়া বন্দর শ্রমিকরাও কাজ হারিয়ে অসহায় হয়ে পড়েছে। সন্তোষজনক সমাধানের মধ্য দিয়ে দ্রুত ধর্মঘট প্রত্যাহারের দাবি জানান তিনি।

বেনাপোল সিঅ্যান্ডএফ অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মফিজুর রহমান সজন জানান, দেশের ১২টি স্থলবন্দর দিয়ে যে পরিমাণ পণ্য আমদানি-রপ্তানি বাণিজ্য হয় যোগাযোগ ব্যবস্থা সহজ হওয়াতে তার ৭০ শতাংশ হয়ে থাকে বেনাপোল বন্দর দিয়ে। টানা ধর্মঘটে বন্দর থেকে পণ্য খালাস নিতে না পারায় বাণিজ্যে অচলাবস্থা নেমে এসেছে। এছাড়া পচনশীল জাতীয় আমদানি ও রপ্তানি পণ্য নিয়ে বিপাকে পড়েছেন অনেকে। দ্রুত ধর্মঘট প্রত্যাহার না হলে বড় ধরনের খেসারত গুনতে হবে ব্যবসায়ীদের। কেবল ব্যবসায়ীরাই নয়, পণ্যপরিবহন বন্ধ থাকায় বড় অংকের রাজস্ব হারাচ্ছে সরকারও।

আরো পড়ুন:
শিবগঞ্জে ২টি ইউপি চেয়ারম্যান প্রার্থীর পৃথক পৃথক নির্বাচনী পথ সভা অনুষ্ঠিত
মধ্যপ্রাচ্যে শ্রমিক যাচ্ছে ‘বডি কন্ট্রাকে’!

বেনাপোল আমদানি-রপ্তানি সমিতির সহসভাপতি আমিনুল হক বলেন, চার দিন ধর্মঘটের কারণে বেনাপোল বন্দরে প্রায় ভারতীয় ৭০০ ট্রাক খালির অপেক্ষায় আটকা পড়েছে। এসব ট্রাক প্রতি প্রতিদিন আমদানিকারককে ২ হাজার টাকা অতিরিক্ত ট্রাক ভাড়া গুনতে হচ্ছে। এছাড়া রপ্তানি পণ্যও বন্দরে আসতে পারছে না। তেলের মূল্য সহনীয় পর্যায়ে রেখে দ্রুত ধর্মঘট প্রত্যাহারের আহবান জানান। ধর্মঘটের কারণে ব্যবসায়ীরা বন্দর থেকে পণ্য খালাস নিতে পারছেন না। তবে এ পথে ভারত থেকে পণ্য নিয়ে ট্রাক চালকেরা বন্দরে আসছে। আমদানিকারকেরা পণ্য খালাস নিলে বন্দর সব সময় প্রস্তুত রয়েছে।

বেনাপোল ট্রাক মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আজিম উদ্দীন গাজী বলেন, সরকার পক্ষ বাস মালিক সমিতির সঙ্গে বসায় পরিবহন ধর্মঘট প্রত্যাহার হয়েছে। তবে ট্রাক-কাভার্ডভ্যান মালিক সমিতির সঙ্গে কোনো আলোচনা না হওয়ায় ধর্মঘট চলমান রয়েছে। পরবর্তী নির্দেশ না আসা পর্যন্ত বেনাপোল বন্দর থেকে কোনো ট্রাক পণ্য পরিবহন করবে না।

নভেম্বর ০৮.২০২১ at ১৯:৩৯:০০ (GMT+06)
দেশদর্পণ/আক/সনি/জআ