রাজধানীতে যৌনকর্মীকে গলাটিপে হত্যা

ছবি: সংগৃহীত
বিজ্ঞাপন

রাজধানীতে যৌনকর্মী ও খদ্দেরে মাঝে চুক্তির পুরো টাকা না দেওয়ায় লাগে বিপত্তি। অনৈতিক কর্মকাণ্ডের কথা সবাইকে জানিয়ে দেয়ার হুমকি দেন যৌনকর্মী। বিষয়টি মানতে না পেরে তাকে গলাটিপে হত্যা করে খদ্দের। রাজধানীর ভাটারায় রাস্তায় পাশ থেকে বস্তাবন্দি নারীর মরদেহ উদ্ধার করে গোয়েন্দা সংস্থা । ঘটনায় আসামি আবদুল জব্বারকে গ্রেপ্তারের পরে এসব তথ্য জানতে পারেন ।

পুলিশ বলছে, চলতি বছরে শুধু রাজধানীতেই এমন অন্তত আটটি হত্যার ঘটনা ঘটেছে।

৮ অক্টোবর বিকেল ৪ টা। রাজধানীর যমুনা ফিউচার পার্কে ঘুরতে দেখা যায় বোরকা পরা এক নারী ও পাঞ্জাবি পরা এক যুবককে। তাদেরকে একসঙ্গে মার্কেট থেকে বের হয়ে যেতেও দেখা যায়। রাস্তার একটি টং দোকান থেকে ফুচকা খেয়ে রাত ৮ টায় ওই যুবক সঙ্গে থাকা নারীকে নিয়ে তার বাসায় যান।

১০ অক্টোবর ভাটারার ঢালিবাড়ি এলাকা থেকে বস্তাবন্দি এক নারীর মরদেহ উদ্ধার করা হয়। খুন করার পর কেউ লাশ বস্তাবন্দি করে ফেলে রেখেছে নিশ্চিত হয় পুলিশ। এই ঘটনায় থানা পুলিশ তিনজনকে আটক করে। কিন্তু মূল আসামি থেকে যায় অধরা।

আরো পড়ুন:
রোশানের কাছে ভরণপোষণ বাবদ মাসে ৭ লাখ টাকা চেয়েছেন শ্রাবন্তী!
রানু মণ্ডলের সাথে দেখা করলেন বায়োপিকের অভিনেত্রী

যমুনা ফিউচার পার্কের সিসি ক্যামেরায় ঘুরতে দেখা ওই নারীই যে বস্তাবন্দি নারী তা নিশ্চিত হওয়ার পর সঙ্গে থাকা যুবককে খুঁজতে থাকে গোয়েন্দারা। গাইবান্ধা থেকে অবশেষে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। তার নাম আবদুল জব্বার। বেরিয়ে আসে হত্যার আসল কারণ।

অভিযুক্ত খুনি আব্দুর জব্বার বলেন, তার লাশটা কার্টনের ভিতরে ঢুকিয়ে রাস্তার ধারে ফেলে দিয়েছি।

ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের মাশউর রহমান বলেন, মাত্র এক হাজার টাকার জন্যই ওই নারীকে গলা টিপে হত্যা করা হয়। ঠিক একই ঘটনা ঘটেছিল মাস ছয়েক আগে রাজধানীর কাজীপাড়ায়। চুক্তির টাকার চেয়ে বাড়তি টাকা দাবি করায় খুন করা হয় যৌনকর্মীকে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর তথ্য বলছে চলতে বছরেই রাজধানীতে এমন ৮টি খুনের ঘটনা ঘটেছে।

অক্টোবর  ২০.২০২১ at ১১:৫৬:০০ (GMT+06)
দেশদর্পণ/আক/সনি/জআ