জাদুকরী ফল: বয়সের ছাপ কমিয়ে তারুণ্য ধরে রাখুন

বিজ্ঞাপন

সবাই নিজের তারুণ্যকে ধরে রাখতে চাইলেও ক’জনই বা পারে। তবে বিরল হলেও এমন উদাহরণও কম নেই, যারা ৬০ পেরিয়েও তারুণ্য ধরে রাখতে পেরেছেন। আর প্রাকৃতিক উপায়েই তারুণ্য ধরে রাখতে পারেন যে কেউই। আজ আপনার হাতের কাছের এমন এক ফলের উপকারিতার কথা বলব, যে ফল খেলে বয়সের ছাপ দূর হয়ে তারুণ্য থাকবে অটুট। সেই ফলের নাম ‘জাম্বুরা’। প্রতিদিন এক গ্লাস জাম্বুরার জুস খেলে আপনি থাকবেন সতেজ ও তারুণ্যময়। এটি ছাড়াও এই ফলের রয়েছে আরও বহুবিধ গুণ। চলুন সব জেনে নেওয়া যাক।

স্বাদে কিছুটা টক-মিষ্টি সাইট্রাস ফল জাম্বুরা আমাদের সবার পরিচিত এবং অত্যন্ত পুষ্টিগুণ সম্পন্ন একটি ফল। অন্যান্য সাইট্রাস ফলের ন্যায় জাম্বুরাতে উচ্চ পরিমাণে ভিটামিন-সি এবং ভিটামিন-বি রয়েছে। এ ছাড়া, অন্যান্য পুষ্টি উপাদান তো রয়েছেই।

জাম্বুরা ফোলিক এসিডের উৎস: জাম্বুরা উচ্চ পরিমাণে বিটা ক্যারোটিন এবং ফোলিক এসিডের উৎস। আর,এই দুটি উপাদানই গর্ভবতী মায়েদের জন্য উপকারী। সুতরাং, গর্ভস্থ শিশুর পুষ্টি নিশ্চিত করতে গর্ভকালীন সময়ে নিয়মিত জাম্বুরা খান।

পুষ্টি উপাদানে সমৃদ্ধ: জাম্বুরাতে রয়েছে ভিটামিন-এ, ভিটামিন-বি১, ভিটামিন-বি২, বায়োফ্লাভোনয়েডস, অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, হেলদি ফ্যাট, প্রোটিন এবং এনজাইমস।

দাঁতকে শক্তিশালী করে: জাম্বুরাতে থাকা ভিটামিন-সি দাঁতের ব্যাথা দূর করতে এবং দাঁতের মাড়ি শক্তিশালী করতে সাহায্য করে। সুতরাং, যাদের দাঁতের সমস্যা বেশি তারা খাদ্য তালিকায় জাম্বুরা অন্তর্ভুক্ত করুন।

প্রাকৃতিক রেমেডিস: জাম্বুরাতে রয়েছে সাধারণ ঠাণ্ডা,জ্বর বা কাশি দূর করার প্রাকৃতিক রেমেডিস।সুতরাং,একটু জ্বর,কাশি বা ঠাণ্ডা হলেই যারা মুঠো ভর্তি মেডিসিন খেয়ে অভ্যস্ত তারা জাম্বুরা খেলে খুব দ্রুত উপকার পাবেন।

হার্টকে সুস্থ রাখে: জাম্বুরাতে রয়েছে উচ্চ পরিমাণে পটাশিয়াম যা রক্তচাপ নিয়ন্ত্রন করতে এবং হার্টকে ভালো রাখতে জরুরি। এ ছাড়া, জাম্বুরাতে উচ্চ পরিমাণে পেক্টিন রয়েছে যা আর্টারিয়াল ডিপোজিট ক্লিয়ার করতে সাহায্য করে। ফলে, হার্ট সুস্থ থাকে।

পেশির টান লাগা দূর করে: পানি পানের অভাব, ডিহাইড্রেশন এবং ইলেক্ট্রলাইটস ইম্ব্যালেন্সের কারণে আমাদের মাসেল ক্রাম্প হয়। আর, যাদের প্রায় মাসেল ক্রাম্প অর্থাৎ পেশিতে টান লাগে, তারা নিয়মিত জাম্বুরা বা জাম্বুরার রস খেতে পারেন। জাম্বুরা বেশ ভালো পরিমাণে ইলেক্ট্রলাইটস এবং তরল সরবরাহ করতে পারে।

অ্যানিমিয়া প্রতিরোধ করে: জাম্বুরাতে থাকা ভিটামিন-সি আয়রন শোষণে সাহায্য করে, ফলে যারা অ্যানিমিয়া বা রক্ত স্বল্পতাতে ভুগছেন তারা প্রতিদিন অন্তত ১ কাপ জাম্বুরা খান।

আরো পড়ুন:
ঘোড়াঘাটে ৩৯ টি পুঁজা মন্ডপে চাল বিতরণ
‘স্যার, এ রকম ভুল আর হবে না’ আদালতে পরী মনি

ইউরিক অ্যাসিডের মাত্রা কমাতে সাহায্য করে: যাদের দেহে উচ্চ পরিমাণে ইউরিক অ্যাসিড আছে তারা নিয়মিত জাম্বুরা খেলে ইউরিক অ্যাসিডের মাত্রা স্বাভাবিক হতে সাহায্য করে।

বয়সের ছাপ দূর করে: নিয়ম করে প্রতিদিন এক গ্লাস জাম্বুরার জুস খেলে স্ক্রিন এবং চুলের স্বাস্থ্য ভালো থাকে।জাম্বুরার অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সেল ড্যামেজ প্রতিরোধ করে। ফলে, বয়সের ছাপ দূর হয়। এ ছাড়া, জাম্বুরাতে রয়েছে চুল থাকে সুস্থ এবং সুন্দর।

ক্যানসারের ঝুঁকি কমায়: জাম্বুরাতে উচ্চ পরিমাণে বায়োফ্লাভোনয়েডস রয়েছে যা ব্রেস্ট ক্যানসার, কোলন ক্যানসার এবং অগ্ন্যাশয়ের ক্যানসার প্রতিরোধ করতে সাহায্য করে। পাশাপাশি, দেহের বিভিন্ন স্থানে ক্যানসার ছড়িয়ে যাওয়া রোধ করে।

এল ডি এল কমাতে সাহায্য করে: যাদের দেহে এল ডি এল বা ব্যাড কোলেস্টেরলের পরিমাণ বেশি তাদের জন্য জাম্বুরা ভীষণ উপকারী। জাম্বুরাতে থাকা ফাইবার কোলেস্টেরল কমাতে সাহায্য করে। এ ছাড়া, এই ফাইবার ওজন কমাতে এবং কোষ্ঠকাঠিন্য কমাতেও সমান উপকারী।

অক্টোবর  ১০.২০২১ at ২০:৫৫:০০ (GMT+06)
দেশদর্পণ/আক/দর/জআ