নন্দীগ্রাম বিএনপি কার্যালয়ে হামলা : মোশারফের নিন্দা প্রকাশ

বিজ্ঞাপন

নন্দীগ্রাম বিএনপি দলীয় কার্যালয়ের ১২ সেপ্টেম্বর রাতের অন্ধকারে কে বা কারা এক ধরনের কাপুরুষ, ভীতু, বিশৃঙ্খলা সৃষ্টিকারী, নাশকতাকারী যারা বাবা মা র প্রকৃত শিক্ষায় শিক্ষা পায়নি এরকম এক শ্রেণীর মানুষ দলীয় কার্যালয়ের ব্যানার, পোস্টার, ফেস্টুন, কেটে ফেলা এবং ছিড়ে ফেলা কাজ করে নিজেকে গর্বিত ভাবছে।

এদেরকে ধিক্কার জানাই এবং তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই। বিএনপির একটি ছোট দল না? অনেক বিশাল এবং অনেক বড় একটি দল। শুধু পোস্টার-ফেস্টুন ছিড়ে শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান, দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানের নাম মুছে ফেলা সম্ভব নয়। যেটা হৃদয়ে ধারণ করছে সেখান থেকে মোছার শক্তি এক আল্লাহ ছাড়া আর কারো নেই।

বাংলাদেশ একটি গণতান্ত্রিক দেশ এখানে দল এবং পার্টি করার অধিকার সকলেরই আছে। কিন্তু যারা এই নোংরা এবং ঘৃণিত কাজ করেছে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী ও ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের আবেদন জানাই এদের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য। ইতিমধ্যে বিষয়টি নন্দীগ্রাম থানার অফিসার ইনচার্জকে জানিয়েছি বলে জানান এমপি আলহাজ্ব মোশারফ হোসেন।

আরো পড়ুন :
খবর প্রকাশে খাবার ও ঘর নির্মাণে সহায়তা পেলেন তালার সেই বৃদ্ধা মা
লেবুখালী ফেরিঘাটে হকারদের পুনবার্সনে জন্য মানববন্ধন

এছাড়াও, কাহালু পৌরসভার মেয়র আলহাজ্ব আব্দুল মান্নান, বগুড়া কাহালু থানা বিএনপি আহবায়ক মো. সেলিম উদদীন, যুগ্মআহবায়ক, নেছার উদ্দিন, সদস্য কাজী আব্দুর রশিদ, ফরিদুর রহমান, হুমায়ুন কবির খোকা, আ.খ.ম. তোফাজ্জল হোসেনের, অধ্যক্ষ রফিকুল ইসলাম, আবদুল করিম,আব্দুল মান্নান, কাহালু পৌর বিএনপি আহবায়ক মো. দেলোয়ার হোসেন বাদল, যুগ্নআহবায়ক মো. ফেরদাউস আলম, সদস্য ফরিদ ফকির, আনিছুর রহমান, হাফিজার রহমান বাবু, আব্দুল মান্নান, সাইফুল ইসলাম, মোহাম্মদ আলী, সালাম সরদার, ফজলু, গোলাম রব্বানী, থানা যুবদল আহবায়ক মো. জিল্লুর রহমান, সিনিয়র যুগ্মআহবায়ক মো. আব্দুল মোমিনসহ থানা ও পৌর বিএনপির বিভিন্ন অঙ্গ সহযোগী সংগঠনের নেতৃত্ববৃন্দ।

সেপ্টেম্বর  ১৩.২০২১ at ২০:২৫:০০ (GMT+06)
দেশদর্পণ/আক/শাকা/রারি