গর্জনিয়ায় বিয়ের পিঁড়িতে বসা হলনা

বিজ্ঞাপন

কক্সবাজারের রামু উপজেলার গর্জনিয়া ইউনিয়নের দক্ষিণ মাঝির কাটা গ্রামের মোজাফফর আহমদের মেয়ে তৈয়বা বেগম (২২) এর মঙ্গলবার (৬ জুলাই) ধার্য ছিল কাবিননামার দিন,আর আগামী শুক্রবার ছিলো বিয়ের পিঁড়িতে বসার দিন। কিন্তু তা আর হলো না। বিয়ের মাত্র তিনদিন আগেই তাকে এসিডে ঝলসে দিলো নরপশুরা। এসিডদগ্ধ হয়ে এখন হাসপাতালের বিছানায় কাতরাচ্ছে বিয়ের স্বপ্নে বিভোর গর্জনিয়ার এ তরুণী।

তার পিতা মোজাফ্ফর আহামদ জানান প্রতিদিনের মতো মঙ্গলবার রাত ৩টার দিকে মায়ের সাথে প্রাকৃতিক কর্ম সারতে বেরিয়েছিলো তরুণী। কিন্তু কে জানতো এই রাতে তার জন্য অপেক্ষা করছিলো এক ভয়ংকর মুহূর্ত? মায়ের পাহারাও তাকে রক্ষা করতে পারেনি। কিছু বুঝে উঠার আগেই তার মুখে এসিড ছুঁড়ে মারে নরপশুরা।

এই নির্মম ঘটনা একই এলাকার বাদশা মিয়ার পুত্ররা ঘটিয়েছে বলেন তরুণীর পরিবার। কারণ টাকা ধার সংক্রান্ত পূর্ব শত্রুতার জের ধরে তারা এই ঘটনা ঘটিয়েছে বলে দাবি করেন তৈয়বার পিতা। এ বিষয়ে অভিযুক্তদের না পেয়ে বাদশা মিয়ার স্ত্রী মমতাজ বেগম থেকে জানতে চাইলে তিনি জানান, আমাদের সাথে তাদের পূর্ব শত্রুতা আছে সে সুবাদে আমার ছেলের নাম বলছে।

তবে মেয়েটির সাথে স্থানীয় এক যুবকের সম্পর্ক ছিল এ জঘন্য ঘটনার সাথে কে জড়িত আমি ও ছেলে জানিনা। আমরা প্রকৃত অপরাধীদের খোঁজে আইনের আওতায় আনার দাবী করছি।

এবিষয়ে গর্জনিয়া পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ ফরহাদ আলী জানিয়েছেন, এসিড নিক্ষেপের এই নৃশংস ঘটনার খবর পেয়ে সাথে সাথে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সাইকেল) আল মামুন ও রামু থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ আনোয়ারুল হোসেন।

আরো পড়ুন:
করোনায় সমুদ্রে গিয়ে পড়েছে ১৫০ কোটি মাস্ক!
করোনাকালে মানবিকতার প্রতিচ্ছবি ঝিনাইদহের পুলিশ

গর্জনিয়া পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ মোঃ ফরহাদ আলী জানান এ ঘটনার সাথে জড়িতরা ছাড় পাবেনা। এসিড নিক্ষেপকারীদের গ্রেফতার করতে অভিযান শুরু করেছে পুলিশ। অপর দিকে এলাকাবাসী এসিড নিক্ষেপের এ জঘন্য ঘটনার সাথে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছেন।