তিন হাজার বছরের পুরনো কঙ্কালে ৮০০ আঘাতের চিহ্ন!

বিজ্ঞাপন

হাজার হাজার বছর আগের প্রাচীন কঙ্কাল বিস্ময়ের উদ্রেক করে। একে ঘিরে কৌতূহলের কোনো শেষ নেই। এবার ৩ হাজার বছরের পুরনো এক কঙ্কাল খুঁটিয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে অবিশ্বাস তথ্য দিলেন বিজ্ঞানীরা।

জাপানের সেতো ইনল্যান্ড সি সংলগ্ন এলাকায় প্রায় ৩ হাজার বছরের পুরনো এক কঙ্কালে পাওয়া গেছে অন্তত ৮০০টি আঘাতে চিহ্ন। বিজ্ঞানীরা বলছেন, হাঙরের আক্রমণের শিকার হয়েছিলেন এই ব্যক্তি। তাদের অনুমান, সম্ভবত সবচেয়ে প্রাচীন হাঙর আক্রান্তর কঙ্কাল এটি।

জার্নাল অব আর্কিওলোজিক্যাল সায়েন্স-এ সম্প্রতি একটি গবেষণা পত্র প্রকাশিত হয়েছে। আন্তর্জাতিক গবেষকদের দল ওই গবেষণা করেছেন।

হাজার হাজার বছরের পুরনো কঙ্কালের মধ্যে ৮০০ আঘাতের চিহ্ন দেখে অবাক হয়েছেন বিজ্ঞানীরা। কী হয়েছিল আসলে, সেটা ঘটনা পুনর্নিমাণের চেষ্টা করেছিলেন তারা।

গবেষকরা জানিয়েছেন, তাদের গবেষণার মাধ্যমে বোঝা গেছে যে এই কঙ্কাল সম্ভবত কোনো মাঝবয়সী যুবকের। ১৩৭০ থেকে ১০১০ খ্রিস্ট পূর্বাব্দে অস্তিত্ব ছিল এই যুবকের।

এই কঙ্কালের মধ্যে যেসমস্ত আঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে, তা দেখে গবেষকদের অনুমান এইসবই হাঙরের আক্রমণের চিহ্ন। কারণ অসংখ্য কাটাছেঁড়া এবং ফ্র্যাকচার রয়েছে। অনুমান, এইসব আঘাত কোনো ধারালো ভি আকৃতির ছুঁচাল জিনিসের ফলে হয়েছে। হাঙরের ধারাল দাঁতের ফলে এইসব আঘাত পাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে বলে মনে করছেন গবেষকরা।

আরো পড়ুন:
কেশবপুরে এমপি শাহীন চাকলাদের পক্ষে ৩১ প্রতিষ্ঠান সংস্কারের জন্য ৩০ লক্ষ টাকা প্রদান
স্বামী’র হত্যা মামলা তুলে না নেওয়ায় হরিণাকুণ্ডুর এক বিধবা নারীকে বাড়ি ছাড়া করার চেষ্টা

সাধারণ হাঙরের আক্রমণে দেখা যায় তারা শিকারের পা-কেই প্রাথমিক নিশানা বানায়। এই কঙ্কালের ডান পা কিন্তু উধাও ছিল। আর বাঁ পা শরীরের উপরের অংশে অর্থাৎ একেবারেই বিপরীত অবস্থানে ছিল। এইসব থেকেই গবেষকরা অনুমান করেছেন, এই কাজ সম্ভবত হাঙরের।