প্রতিমন্ত্রী স্বপনের বিরুদ্ধে ‘অপপ্রচারের’ অভিযোগ, মণিরামপুর উপজেলা চেয়ারম্যানকে বয়কটের হুশিয়ারি

বিজ্ঞাপন

স্থানীয় সরকার মন্ত্রনালয়ের পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় বিভাগের  প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্য্য (এমপি)-এর বিরুদ্ধে ‘মিথ্যা, বনোয়াট ও মিথ্যাচার’ করে সাংবাদিক সম্মেলন করায় মণিরামপুর উপজেলা চেয়ারম্যান নাজমা খানমের বিরুদ্ধে মানববন্ধন, প্রতিবাদ সভা ও সাংবাদিক সম্মেলন করেছে মণিরামপুর উপজেলা আওয়ামীলীগ।

শুক্রবার সকালে এই কর্মসূচি পালন করা হয়। কর্মসূচী থেকে বলা হয়,  স্বপন ভট্টাচার্য্যর বিরুদ্ধে উপজেলা চেয়ারম্যান নাজমা খানম  ‘মিথ্যা, বনোয়াট ও মিথ্যাচার’করে তাঁর ও দলের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করেছেন। এ জন্য তাকে ক্ষমা চাইতে হবে। না চাওয়া পর্যন্ত তাকে দলীয় কর্মসূচীতে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করার দাবি জানানো হয়।

এদিন  ১০টার পর দলীয় কার্যালয়ের পাশের সড়কে কয়েক হাজার নেতা কর্মী সমবেত হয়ে এই কর্মসূচি পালন করেন।  তারা উপজেলা চেয়ারম্যান নাজমা খানমকে বয়কট এবং প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্য্যরে পক্ষে শ্লোগান সম্বলিত ব্যানার, ফেস্টুন ও প্লাকার্ড বহন করেন।   প্রতিবাদ সভায় সভাপতিত্ব করেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও পৌর মেয়র অধ্যক্ষ কাজী মাহমুদুল হাসান। উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক প্রভাষক ফারুক হোসেনের সঞ্চালনায় প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তব্য প্রদান করেন ও উপস্থিত ছিলেন উপজেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র সদস্য আবুল কালাম আজাদ, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ও ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রাজ্জাক, সাবেক ভারপ্রাপ্ত উপজেলা চেয়ারম্যান ও আওয়ামীলীগ নেতা জিএম মজিদ,

তরুণ আওয়ামীলীগ নেতা বশির আহম্মেদ খান, উপজেলা যুবলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সম আলাউদ্দীন, উপজেলা যুব মহিলা লীগের সভাপতি ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান কাজী জলি আক্তার, আওয়ামীলীগনেতা রুহুল আমিন, আওয়ামীলীগনেতা ও ইউপি চেয়ারম্যান মনিরুজ্জমান মনি, উপজেলা কৃষকলীগের সাধারণ সম্পাদক আবুল ইসলাম, উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক শরিফুল ইসলাম রিপন, উপজেলা ছাত্রলীগের আহবায়ক মুরাদুজ্জামান মুরাদ প্রমূখ।

বক্তারা বলেন, মণিরামপুরের আপামর জনসাধারনের প্রিয় অভিভাবক, দৃশ্যমান উন্নয়নের প্রতিচ্ছবি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত মাননীয় প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্য্যসহ তার পরিবারের সদস্যদের যখন সূস্থ্যতা কামনায় প্রার্থনা করে যাচ্ছে,  ঠিক তখন নাজমা খানম তার বিরুদ্ধে মিথ্যা, ভিত্তিহীন,  বানোয়াট তথ্য উপস্থাপনের মাধ্যমে সাংবাদিক সম্মেলন করেছেন। বাস্তবে তিনি অতি উৎসাহী কতিপয় হাইব্রিড মানুষের দ্বারা প্রভাবিত হয়ে প্রতিমন্ত্রীকে হেয় প্রতিপন্ন করার পায়তারায় লিপ্ত হয়েছেন। বক্তারা তাঁর এ তৎপরতার তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানান ।

বক্তারা বলেন, স্বপন ভট্টাচার্য্যর জনপ্রিয়তা কতটা আজ এই প্রতিবাদ সমাবেশই তা প্রমাণ করে দেয়।করোনার ভয়ে যখন অনেকেই ঘরের ভিতর লুকিয়ে ছিল, তখন মাননীয় প্রতিমন্ত্রী ঘরে-ঘরে ত্রান পৌছিয়ে দেবার জন্য নেতাকর্মীদের বারবার তাগিদ দিয়েছেন।  নিজে স্বশরীরে  বিভিন্ন এলাকায় গিয়েছেন।
এ সময় বক্তরা বলেন,  উপজেলা চেয়ারম্যান নাজমা খানমকে তার মিথ্যা ও বানোয়াট বক্তব্য প্রত্যাহার করে ক্ষমা  চাইতে হবে। তিনি যতদিন তা না করবেন, ততদিন তাকে মণিরামপুরে আওয়ামীলীগের ওয়ার্ড, ইউনিয়ন, পৌরসহ উপজেলাসহ সকল পর্যায়ের নেতাকর্মীরা তাকে বয়কটসহ দলীয় কোন সভা সমাবেশ তাকে ডাকা হবেনা।

সমাবেশে আরও উপস্থিত ছিলেন উপজেলা যুবলীগের সাবেক সভাপতি দেবাশীষ সরকার বাবু, আওয়ামীলীগনেতা ও ইউপি চেয়ারম্যান গাজী মোহাম্মদ, জিএম এরশাদ আলী, শেখর চন্দ্র রায়, গাজী মাযাহারুল আনোয়ার আওয়ামীলীগ নেতা মতিয়ার রহমান, স্বপন কুমার দাস, রিপন ধর, জিএম মঞ্জুরুল হাসান সাজ্জাদ, উপজেলা কৃষকলীগের যুগ্ম সম্পাদক মামুন অর রশিদ জুয়েল, উপজেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম আহবায়ক ফজলুর রহমান।

মানবন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ শেষে দলীয় কার্যালয়ে প্রেস ব্রিফিং করেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি কাজী মাহমুদল হাসান। তিনি বলেন,  ব্যক্তিগত আক্রোশের বহি:প্রকাশ ঘটাতে গিয়ে নাজমা খানম শুধু প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্য্য নন, দলের ভাবমূর্ত্ম ক্ষুন্ন করেছেন । প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্য্য ও তার সহধর্মিনীসহ পরিবারের সদস্যরা করোনা আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

তার সুস্থ্যতা কামনায় উপজেলার সকল মসজিদ, মন্দিরসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক সংগঠন দোয়া ও প্রার্থনা করা হচ্ছে ঠিক সেই মুহুর্তে চেয়ারম্যান নাজমা খানমের এমন ন্যাক্কাজনক মিথ্যাচার উপজেলাবাসীকে শুধু হতাশ নয়, ব্যথিতও করেছে । এসময় উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক প্রভাষক ফারুক হোসেনসহ বিভিন্ন স্তরের নেতা-কর্মী ও নির্বাচিত দলীয় জনপ্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।