কালীগঞ্জে নির্দেশনা না মেনে ঘরের বাইরে অনেকে

করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) প্রতিরোধে মানুষকে ঘরে থাকার পরামর্শ দিচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা। মানুষকে ঘরে রাখতে প্রচার প্রচারণা থেকে শুরু করে নানা কর্মসূচি গ্রহণ করেছে সরকার। কিন্তু বিশেষজ্ঞদের সেই পরামর্শ বা সরকারের নির্দেশনা মানছে না অনেকেই। বিভিন্ন অজুহাতে বাইরে বের হয়ে আড্ডা দিচ্ছেন কেউ কেউ।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণকে বিশ^ব্যাপী মহামারি হিসেবে ঘোষণা করেছে বিশ^ স্বাস্থ্য সংস্থা। বাংলাদেশেও সবাই ভীত এই সংক্রামক রোগ নিয়ে। করোনা থেকে বাচতে সচেতনতা অবলম্বন করতে বলেছেন বিশেষজ্ঞরা। এক্ষেত্রে পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা এবং জনসমাগম এড়িয়ে চলার কথা বলা হচ্ছে। তবে ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন স্থানে এমন নির্দেশনা মানা হচ্ছে কম।

উপজেলা প্রশাসন ২৮ এপ্রিল থেকে ৭ ই মে ১০ দিন পর্যন্ত জরুরী সেবার পন্য ব্যাতিত সব ব্যবসা প্রতিষ্টান বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। কাঁচা বাজার, ঔষধ, সার ও ডিজেল বিক্রয় পূর্বের ন্যায় খোলা থাকবে। এ ছাড়াও জরুরী আবশ্যক ব্যাতিত সিএনজি, ইজিবাইক, রিক্্রা ও মটরসাইকেল চলাচল বন্ধ রাখার নির্দ্দেশনাও দেওয়া হয়েছে। কিন্তু মঙ্গলবার সারাদিন দেখা গেছে অনেকেই এ আইন মানছেনা ।

কালীগঞ্জ বাজার থেকে উপজেলার আঞ্চলিক সড়কে নেই ছোট যানবাহনের ঘাটতি। অবাধে মানুষ চলাচল করছে। নেই করোনার ভয়। সাধারণ মানুষের মাঝে করোনার আতঙ্ক বিরাজ করছে কম।

একাধিক চালকের সাথে কথা বলে জানা যায়, কত দিন ঘরে বসে থাকলে চলবে। কাজ না করলে কি খাবো। সংসার চলবে কি করে। আমাদের ঘরে খাবার না থাকলে কেউ দেখে না। তবে মহাসড়কে চোখে পড়েনি দূর পাল্লার কোন যানবাহন কিন্তু ইজিবাইক, রিক্্রা ও মটরসাইকেল অবাধে চলছে ।