শিক্ষকের বিচারের দাবিতে মানববন্ধন ও স্বারকলিপি প্রদান

মাগুরা শ্রীপুর উপজেলার শ্রীপুর এমসি ভোকেশনাল শাখার গণিত শিক্ষক প্রদীপ কুমার ঘোষের শাস্তির দাবিতে আজ (২২ জানুয়ারি) বুধবার শ্রীপুর উপজেলাবাসি ও সচেতন যুব সমাজের পক্ষ থেকে মানববন্ধন ও শ্রীপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে স্বারকলিপি প্রদান করা হয়।

মানববন্ধন ও শ্রীপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর স্বারকলিপি প্রদানের সময় উপস্থিত ছিলেন শ্রীপুর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান কাজী জালাল উদ্দিন, মাগুরা জেলা বিশ্ব সন্ত্রাস বিরোধী সংগঠনের সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক ও সচেতন যুবক জাহিদুল ইসলাম জুয়েল, শ্রীপুর উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক রুবেল হোসেন, শ্রীপুর উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের দপ্তর সম্পাদক শফিউল্লাহ কর্ণেল, যুবলীগ নেতা জিয়া সহ শত শত সচেতন শ্রীপুর উপজেলাবাসি ও সচেতন যুব সমাজ।

মানববন্ধন ও স্বারকলিপিতে অভিযোগ করা হয়,শ্রীপুর এমসি ভোকেশনাল শাখার গণিত শিক্ষক প্রদীপ কুমার ঘোষের সম্প্রতি ছাত্রীর সাথে অবৈধ সম্পর্ক প্রস্তাবের অডিও ও ছাত্রীকে শ্লীলতাহানী করে এবং স্পর্শকাতরস্হানে হাত দেওয়ায় ওই ছাত্রী বাবা শ্রীপুর থানায় মৌখিক অভিযোগ করার পর বিষয়টি ফেসবুক মিডিয়ায় ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি হয়।শিক্ষক প্রদীপ কুমার ঘোষের শাস্তির দাবিতে এখন উত্তাল শ্রীপুর।
আরও পড়ুন: ন্যায্য অধিকারের দাবিতে মানববন্ধন

প্রদীপ কুমার ঘোষের বিরুদ্ধে অভিযোগের কোন শেষ নেই।বিভিন্ন সময়ে ছাত্রীদের কু-প্রস্তাব ও নানান অপকর্মের সাথে জড়িত এই শিক্ষক। তিনি সুন্দরী কোন ছাত্রী দেখলে তিনি পরীক্ষায় পাস করিয়ে দেবে বলে তাদের সাথে নানান রকম কু-প্রস্তাব ও অবৈধ সম্পর্ক স্হাপন করতে ব্যাকুল হয়ে ওঠে। আর যারা রাজী না হয় তাদের পরীক্ষায় ফেল করিয়ে দেওয়ার অভিযোগও আছে তার বিরুদ্ধে। এমন কি তিনি ছাত্রীদের ব্লাকমেল করে তাদের সাথে দৈহিক সম্পর্ক স্হাপনের জন্য চাপ সৃষ্টি করে।

অপরাধী প্রদীপ কুমার ঘোষ এখনো ধরা ছোয়ার বাইরে। প্রতিষ্ঠান বিচারের নামে করছে প্রহসন। লোক দেখানো ৩ দিনের শোকজ করেছে প্রতিষ্ঠানটি। হয়নি তার বিরুদ্ধে কোন প্রশাসনিক ব্যবস্হা। ভোক্তভোগীরা ও এখন আত্ব-সম্মান ও নিরাপত্তাহীনতায় ভয়ে নিরব।

এ বিষয়ে উক্ত প্রতিষ্ঠানের সভাপতি ও শ্রীপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার জনাব ইয়াছিন কবির বলেন, প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে এ বিষয়ে আমাকে অবগত করা হয় নাই। আজ আমি বিষয়ে অবগত হয়েছি।ভোক্তভোগীর পক্ষ থেকে ও এ বিষয়ে আমাকে জানানো হয়নি।বিষয়টা তদন্ত সাপেক্ষে অপরাধীর অপরাধ প্রমানিত হলে আপরাধীকে আইনের আওতায় আনা হবে।

শ্রীপুর থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জনাব মাহবুবুর রহমান জানান, এ বিষয়ে থানায় কেউ কোন লিখিত অভিযোগ দায়ের করেনি।

দেশদর্পণ/এমএম/এসজে