রাজপরিবার ছাড়ার সত্যি কারণ জানালেন হ্যারি

দুই সপ্তাহ আগে একটি ইনস্টাগ্রাম পোস্টে ব্রিটিশ রাজপরিবার থেকে বেরিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দেন হ্যারি ও মেগান। এ খবর অনেকেই মর্মাহত হয়েছেন। এই ঘোষণার পর রানি এলিজাবেথ সেটি সিদ্ধান্ত অনুমোদনও দিয়েছেন। এখন থেকে রাজউপাধিও ব্যবহার করবেন না তারা। ঘোষণা দেয়ার পর এ নিয়ে প্রথমবারের মতো জনসম্মুখে মুখ খুলেছেন হ্যারি।

লন্ডনে আইভি সেলসিয়া ক্লাবে নিজের চ্যারিটি প্রতিষ্ঠান সেনটেবলের একটি অনুষ্ঠানে হ্যারি বলেন, আমি চাই আপনারা আমার কাছ থেকে সত্যিটা জানুন। যতটুকু আমি বলতে পারি- রাজপুত্র হিসেবে নয়, ডিউক হিসেবে নয়, শুধু হ্যারি হিসেবেই, আমি আপনাদেরই একজন, গত ৩৫ বছর ধরে আপনাদের সামনেই বেড়ে উঠেছি। ব্রিটেন আমার বাড়ি এবং ভালোবাসার জায়গা। বেড়ে উঠায় এ সময়টাতে আমি আপনাদের সহযোগিতা অনুভব করেছি। আপনারা খোলামনে মেগানকে স্বাগত জানিয়েছেন, আমি আমার সারাজীবনের কাঙিক্ষত ভালোবাসা খুঁজে পেয়েছি। সেই নারীকেই আমি স্ত্রী হিসেবে বেছে নিয়েছি যে আমার মতো একই মূল্যবোধ ধারণ করে। সে একই নারী আমি যার প্রেমে পেয়েছি। দেশের পতাকা সমুন্নত রাখতে এবং দেশের দায়িত্ব পালন করতে আমরা সবকিছু করি। যখন আমি মেগান বিয়ে করেছিলাম, আমরা রোমাঞ্চিত ছিলাম, আশাবাদী ছিলাম, আমরা সেবা করার জন্যই এখানে ছিলাম। এসব কারণই আমার মধ্যে বিশাল হতাশা নিয়ে এসেছে যার কারণে আজ এই পরিস্থিতি (রাজপরিবার থেকে বেরিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত) তৈরি হয়েছে। সরে যাওয়ার যে সিদ্ধান্ত আমি এবং আমার স্ত্রী নিয়েছি, তা হালকাভাবে নিইনি। বহু বছরের প্রতিকূল অবস্থার মুখোমুখি হওয়ার পর কয়েকমাস ধরে আলোচনা করে এ সিদ্ধান্ত নিতে হয়েছে। জানি, আমি সবকিছু সঠিক করতে পারি না, কিন্তু এই সিদ্ধান্তের বিষয়ে আমার কাছে আর কোনো ‘অপশন’ ছিল না। জনগণের অর্থায়ন ছাড়া আমরা রানী, কমনওয়েলথ, আমার সামরিক প্রতিষ্ঠানের সেবা করতে চেয়েছি। কিন্তু দুর্ভাগ্যবশত সেটি সম্ভব নয়। সূত্র: মিরর ইউকে

দেশদর্পণ/এসজে