অভিনব কৌশলে ট্রেনের তেল চুরি

দীর্ঘ দিনেও প্রশাসন বন্ধ করতে পারেনি ট্রেনের তেল চুরি

অভিনব কৌশলে সিরাজগঞ্জে ট্রেনের তেল চুরি চলছে রুটিন করে। দীর্ঘ দিনেও প্রশাসন বন্ধ করতে পারেনি ট্রেনের তেল চুরি। উল্লাপাড়া উপজেলার লাহিড়ী মোহনপুরের পশ্চিম বংকিরোড ব্রীজটি দীর্ঘদিন যাবত ঝুকিপুর্ন হওয়ায় ট্রেন থামিয়ে ধীর গতিতে পাড় হতে হয়। এই সুযোগে একটি অসাধু ব্যবসায়ী চক্র ট্রেনের তেল চুরি, ছিনতাইসহ নানা অপকর্ম করে আসছে। ফলে দুরভোগে পড়েছে ট্রেনের যাত্রীসহ স্থানীয় সাধারণ মানুষ।

সরেজমিনে জানা যায়, তেল চোর চক্রটি ঈশ্বরদী থেকে উঠে কৌশলে ট্রেনের ইঞ্জিন থেকে চটের বস্তার মধ্যে পলিথিন দিয়ে বস্তা ভর্তি করে তেল চুরি করে এবং বংকিরোড ব্রীজে ট্রেন দাঁড়ালে তারা নেমে যায় এবং অন্য ট্রেনে আবার ফিরে যায় অসাধু ব্যবসায়ী চক্র। চোরচক্রকে একদিন ধরার চেষ্টা করে স্থানীয়রা। পরে চোর চক্ররের সদস্যারা বুঝতে পারলে ১ বস্তা তেল ফেলে পালিয়ে যায়। পরে বস্তা ভর্তি তেল উদ্ধার করে তারা একটা স্থানীয় ক্লাবে রেখে পুলিশে খবর দেয়। স্থানীয়দের দাবি ক্ষতিগ্রস্ত ব্রীজে প্রশাসনের নজরদারী বাড়ানো দরকার।

স্থানীয় বাসিন্দা মোঃ আকমল হোসেন, বলেন, অনেক দিন ধরেই তারা ট্রেনের ইঞ্জিনের তেল চুরি করে আসছে। একদিন এই চোরচক্রকে ধরার চেষ্টা করা হয়েছিল। পরে চোর চক্ররের সদস্যারা টের পেয়ে ১ বস্তা তেল ফেলে পালিয়ে যায়।

ওই এলাকার বাসিন্দা খলিলুর রহমান বলেন, এলাকাবাসীকে নিয়ে একদিন চোরচক্রকে আটক করার চেষ্টা করা হয়। কিন্তু সুকৌশলে তারা পালিয়ে যায়। পরে পুলিশে খবর দিলে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে এক বস্তা তেল উদ্ধার করে নিয়ে যায়। পরবর্তীতে পুলিশের আর কোন তৎপরতা নেই।

স্থানীয় ৩নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য হাছান খান বলেন, অনেক দিন ধরেই চুরি ছিনতাইসহ নানা ধরনের অপকর্মের কথা শুনছি তবে এটা বন্ধে দ্রুত পদক্ষেপ নিতে হবে।

লাহিড়ী মোহনপুর স্টেশনের সহকারী মাস্টার আব্দুল বাতেন বলেন, তেল চুরির বিষয়টি শুনেছি। তাছাড়া জানা থাকলেও আমার কিছু করার নেই। কারণ আমার স্টেশন প্লাটফর্মের বাইরে অনেক কিছুই ঘটতে পারে। সেটার দায়িত্ব আমি নিব কেন বললেন তিনি।

সিরাজগঞ্জ জিআরপি থানার উপ-পরিদর্শক এস.আই আবুল হাশেম খন্দকার জানান, বিষয়টি নিয়ে আমরা তৎপর আছি যেন কোন রকমের অপৃতিকর ঘটনা আর না ঘটে এবং পাশাপাশি ওই চক্রটিকে আটক করে বিচারের আওতায় আনা হবে তিনি জানান।