তুরাগ তীরে আজ বিশ্ব ইজতেমা শুরু

টঙ্গীর তুরাগ তীরে শুক্রবার (১০ জানুয়ারি) ভোর থেকে শুরু হয়েছে তাবলিগ জামাতের বৃহত্তম সম্মিলন ৫৫তম বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্ব। বাদ ফজর আম বয়ানের মধ্য দিয়ে শুরু হওয়া ৩ দিনব্যাপী এ ইজতেমা শেষ হবে ১২ জানুয়ারি আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে। প্রথম পর্বের কার্যক্রম পরিচালনা করবেন মাওলানা জোবায়েরের অনুসারীরা। আর ১৭-১৯ জানুয়ারি ২য় পর্ব ইজতেমার কার্যক্রম পরিচালনা করবেন মাওলানা সাদের অনুসারী মাওলানারা।

কনকনে ঠাণ্ডা উপেক্ষা করে গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল থেকেই ইজতেমায় যোগ দিতে দলে দলে ময়দানের দিকে আসতে শুরু করেন মুসল্লিরা। কয়েক দফা গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি ও যানজটের কারণে বেশ দুর্ভোগ পোহাতে হয়েছে তাদের।

এদিকে ইজতেমাকে ঘিরে ৩ স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা হাতে নিয়েছে র‌্যাব। ত্রিমাত্রিক নিরাপত্তা ব্যবস্থায় ব্যবহৃত হচ্ছে ড্রোন ও হেলিকপ্টার। মেটাল ডিটেক্টর সম্পন্ন ২০টি প্রবেশপথ দিয়ে ময়দানে ঢুকতে হচ্ছে মুসল্লিদের। এবার ময়দানকে মোট ৯২টি খিত্তায় ভাগ করা হয়েছে। দেশের ৬৪ জেলার মুসল্লিদের জন্য নির্ধারণ করা হয়েছে ৮৭টি খিত্তা। বাকি ৫টি খিত্তা সংরক্ষিত রাখা হয়েছে। কোনো জেলার মুসল্লি বেশি হলে অথবা মাদ্রাসা ছাত্রদের ওই খিত্তাগুলোতে থাকতে দেয়া হবে।

বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্বে দেশের মুসল্লিদের পাশাপাশি বিশ্বের বিভিন্ন দেশের ধর্মপ্রাণ মুসল্লিরা অংশ নিচ্ছেন। বিদেশি মেহমানদের জন্য ইজতেমা ময়দানের উত্তর-পশ্চিম পাশে নিবাস তৈরি করা হয়েছে। সেখানে তাদের জন্য গরম পানি, রান্নার জন্য গ্যাস, উন্নত টয়লেটসহ নানা ব্যবস্থা রাখা হয়েছে।

টঙ্গী বিশ্ব ইজতেমা ময়দানের শীর্ষ মুরুব্বি ও ময়দানের জিম্মাদার প্রকৌশলী মাহফুজ হান্নান ও ইজতেমা মিডিয়া সমন্বয়কারী মুফতি জহির ইবনে মুসলিম বলেন, ৩ দিনের ইজতেমাকে ঘিরে টঙ্গী ও আশপাশ এলাকায় ধর্মীয় উৎসব আমেজ বিরাজ করছে। গত কয়েক দিন ধরে অল্প স্বল্প করে মুসল্লিরা আসলেও বৃহস্পতিবার সকাল থেকেই মুসল্লিদের ঢল নেমেছে। শুক্রবার ভোরে আনুষ্ঠানিক বয়ান শুরু হলেও বৃহস্পতিবার আসরের পর থেকেই আগত মুসল্লিদের উদ্দেশ্যে বয়ান শুরু হয়েছে।

এদিকে র‌্যাব মহাপরিচালক অতিরিক্ত আইজিপি বেনজীর আহমেদ ইজতেমার নিরাপত্তা নিয়ে গতকাল বলেন, ইজতেমাতে ২৭টি দেশের বিদেশি নাগরিকসহ বিপুল সংখ্যক মুসল্লির জমায়েত হবে। আমরা ইতোমধ্যে গোয়েন্দা নজরদারির কাজ শুরু করেছি। পুরো ময়দান সিসি ক্যামেরার আওতায় আনা হয়েছে। গাড়ি-বাইক পেট্রোলিংয়ের পাশাপাশি তুরাগ নদীতে স্পিডবোটের মাধ্যমে বোট পেট্রোলিংয়ের ব্যবস্থা করা হয়েছে। এছাড়া ত্রিমাত্রিক নিরাপত্তার অংশ হিসেবে আকাশপথে দুটি হেলিকপ্টারের পাশাপাশি ড্রোনের মাধ্যমে সার্বক্ষণিক নজরদারি রাখা হবে।

তিনি আরো বলেন, বর্তমানে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নানা ধরনের গুজব ছড়ানোর মাধ্যমে পরিণত হয়েছে। এজন্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলো মনিটরিং করা হচ্ছে।

আজ বৃহত্তম জুমার নামাজ : আজ শুক্রবার ইজতেমা ময়দানে জুমার নামাজ অনুষ্ঠিত হবে। এতে অংশ নিতে গাজীপুরসহ আশপাশের জেলার কয়েক লাখ মুসল্লি ইজতেমা ময়দানে উপস্থিত হবেন। টঙ্গীর তুরাগ নদীর তীরে ১৬০ একর এলাকাজুড়ে নির্মিত চটের প্যাণ্ডেল ইতোমধ্যে মুসল্লিদের দ্বারা পরিপূর্ণ হয়ে গেছে। এখনো মুসল্লিদের টঙ্গীতে আসা অব্যাহত রয়েছে। আগামী রবিবার আখেরি মোনাজাতের আগ পর্যন্ত মুসল্লিদের আসা অব্যাহত থাকবে।
ইজতেমায় বিনামূল্যে স্বাস্থ্যক্যাম্প : মুসল্লিদের সুবিধার্থে ইজতেমা ময়দানের পাশে স্থাপন করা হয়েছে বেশ কয়েকটি ফ্রি মেডিক্যাল ক্যাম্প। এসব মেডিকেল ক্যাম্প থেকে ইজতেমায় আগত মুসল্লিদের বিনামূল্যে স্বাস্থ্যসেবা ও প্রয়োজনীয় ওষুধ দেয়া হচ্ছে। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে ফ্রি মেডিকেল সেন্টার উদ্বোধন করেন যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী মো. জাহিদ আহসান রাসেল এমপি। কাজী গোলাম রহমানের সভাপতিত্বে এসময় বক্তব্য রাখেন ধর্মবিষয়ক প্রতিমন্ত্রী এডভোকেট শেখ মো. আবদুল্লাহ, গাজীপুর সিটি করপোরেশন মেয়র মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম, ধর্ম সচিব মো. নূরুল ইসলাম, ইসলামী ফাউন্ডেশনের ডিজি আ. হামিদ জমাদ্দার ও জেলা প্রশাসক এস এম তরিকুল ইসলাম।

ইজতেমা ময়দানে এক মুসল্লির মৃত্যু : ইজতেমায় আগত মুসল্লিদের মধ্যে গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে ইয়াকুব আলি শিকদার (৮৫) নামে এক মুসল্লির মৃত্যু হয়েছে। তিনি গোপালগঞ্জ জেলার কোটালীপাড়ার লাখিরপাড় এলাকার মৃত হাসেম আলির ছেলে। ইজতেমার মুরব্বি হাজি রেজাউল করিম জানান, সকালে সাড়ে ৬টার দিকে ইয়াকুব আলি শিকদার নিজ খিত্তায় হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়েছে। জোহরের নামাজের পর জানাজা শেষে তার মরদেহ গ্রামের বাড়ির উদ্দেশে পাঠানো হয়েছে।