জয়পুরহাটে ছাত্র ইউনিয়নের জেলা সম্মেলন

বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন জয়পুরহাট জেলা সংসদের ১৫তম সম্মেলন আগামীকাল (৯ জানুয়ারি) অনুষ্ঠিত হবে। “ছাত্র জনতা ঐক্য গড়ে, শিক্ষা বাঁচাও দেশ বাঁচাও” প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে জেলা শহরের শহীদ কবি মাহতাব উদ্দিন বিদ্যাপীঠে সম্মেলনটি অনুষ্ঠিত হবে।

জয়পুরহাট জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কমান্ডার ও জেলা ছাত্র ইউনিয়নের সাবেক সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আমজাদ হোসেন সম্মেলন উদ্বোধন করবেন।

আহবায়ক রিফাত আমিন রিয়নের সভাপতিত্বে এবং সদস্য তাসরিন সুলতানা’র সঞ্চালনায় সম্মেলনের উদ্বোধনী সমাবেশে বক্তব্য রাখবেন, উদ্বোধক আমজাদ হোসেন, কেন্দ্রীয় সভাপতি মেহেদী হাসান নোবেল, কেন্দ্রীয় সহ সভাপতি ও বগুড়া জেলা সভাপতি নাদিম মাহমুদ, সাবেক জেলা সভাপতি দেওয়ান মোঃ বদিউজ্জামান, কেন্দ্রীয় সাবেক সহ-সভাপতি ও জেলা সাবেক সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম নান্নু, জেলা সিপিবি’র সাধারণ সম্পাদক এম এ রশিদসহ বিভিন্ন ইউনিটের নেতৃবৃন্দ।

সমাবেশের পর একটি র‌্যালি জেলা শহরের বিভিন্ন জায়গা প্রদক্ষিণ করবে।

সম্মেলন সফল করতে জেলার বিভিন্ন ইউনিট থেকে ছাত্র ইউনিয়নের নেতৃবৃন্দ ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে অংশগ্রহণ করবেন।
আরও পড়ুন: মাদক সেবনের অভিযোগে এক যুবককে কারাদণ্ড

সম্মেলনকে সফল করতে বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়নের আহবায়ক রিফাত আমিন রিয়ন, শুভানুধ্যায়ী, জেলার বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ, জেলার ক্রিয়াশীল ছাত্র সংগঠন, সাংবাদিকসহ আপামর ছাত্র সমাজকে অংশ্রগ্রহণ করার আহ্বান জানান।

১১ দফা দাবীর ভিত্তিতে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে এবারের ১৫তম জেলা সম্মেলন।

১১ দফা দাবীসমূহ-

১। পাঠ্যপুস্তকে সাম্প্রদায়িকীকরণ রুখো, মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় অসাম্প্রদায়িকতার দর্শনে পাঠ্যপুস্তক প্রণয়ন কর।
২। শিক্ষার গণতান্ত্রিক পরিবেশ নিশ্চিতকল্পে জয়পুরহাট সরকারি কলেজসহ সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ছাত্র সংসদ নির্বাচন দাও।
৩। অবিলম্বে সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ক্যান্টিনসহ পর্যাপ্ত ছাত্রাবাস তৈরি ও পরিবহণ ব্যাবস্থা চালু কর।
৪। শিক্ষাখাতে জাতীয় আয়ের ৮ভাগ অথবা জাতীয় বাজেটের ২৫% বরাদ্দ নিশ্চিত কর।
৫। অবিলম্বে প্রশ্নপত্র ফাঁস, কোচিং বাণিজ্য ও ভর্তি বাণিজ্য রুখো।
৬। শিক্ষকদের স্বতন্ত্র, যুগোপযোগী, আধুনিক বেতন কাঠামো নিশ্চিত কর।
৭। অবিলম্বে পিইসি পরীক্ষা বাতিল কর, অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত একই ধারার প্রাথমিক শিক্ষা নিশ্চিত কর পর্যায়ক্রমে সমগ্র শিক্ষা জাতীয়করণ কর।
৮। ইউজিসির ২০ বছর মেয়াদী কৌশলপত্র বাতিল কর, শিক্ষার বাণিজ্যিকীকরণ বন্ধ কর।
৯। সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের জন্য হেলথ কার্ড নিশ্চিত কর।
১০। সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে খেলার মাঠসহ শহীদ মিনার স্থাপন কর।
১১। অবিলম্বে একই ধারার গণমুখী, বিজ্ঞানভিত্তিক, সর্বজনীন, অসাম্প্রদায়িক শিক্ষানীতি গ্রহণ ও বাস্তবায়ন কর।

দেশদর্পণ/আরএআর/এসজে