ডাক্তার সুমনুলের ভুল অপারেশন গৃহবধু রাশিদার মৃত্যু : তদন্ত কমিটি গঠন

কামারখন্দ ৫০ শয্যা বিশিষ্ট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ডা. এমএম সুমনুল হক (সজীব)‘র ভুল অপারেশনের কারনে ১৫ দিন মৃত্যু সাথে পাঞ্জালড়ে গৃহবধু রাশিদা বেগম (৩০) মারা জাবার ঘটনায় তিন সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। ১০ কার্যদিবসের মধ্যে তদন্ত করে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে।
তদন্ত কর্মকতারা হলেন- সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলা স্বাস্থ্য ও প:প: কর্মকর্তা ডা: ইফতেখার আহম্মেদ তছলিম, কামারখন্দ ৫০ শয্যা বিশিষ্ট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার ডা: নাজিবুল, কাজিপুর ৫০ শয্যা বিশিষ্ট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জুনিয়ার কনসালটেন্ট গাইনি ডা: আঞ্জুমান আরা বকুল।
সিরাজগঞ্জ সিভিল সার্জন ডা. জাহিদুল ইসলাম জানান, মোছা: রাশিদা বেগম (৩০) মারা জাবার ঘটনায় তিন সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। মোছা: রাশিদা বেগম সদর উপজেলার সয়দাবাদ ইউনিয়নের পঞ্চসোনা গ্রামে মো: মনিরুল ইসলামের স্ত্রী।
উল্লেখ্য গত রবিবার রাতে সদর উপজেলার সয়দাবাদ ইউনিয়নের পঞ্চসোনা গ্রামে তার নিজ বাড়িতে মৃত্যুবরণ করেন গৃহবধু রাশিদা বেগম। এর আগে গত ৫ অক্টোবর কড্ডার মোড় ল্যাব এইচ হাসপাতাল এন্ড ডায়াগনষ্টিক সেন্টারে তার অপারেশন করেন ডা. এমএম সুমনুল হক।
গত ৫ আক্টোবর সকালে গর্ভকালীন ব্যাথা অনুভব করলে স্ত্রীকে নিয়ে ডা. এমএম সুমনুল হকের কাছে নিয়ে যান। পরে সে কড্ডার মোড় ল্যাব এইচ হাসপাতাল এন্ড ডায়াগনষ্টিক সেন্টারে ভর্তি করে। সেখানে পরিক্ষা নিরিক্ষা করে জরুরী অপারেশন করার কথা বলেন। সিজার অপারেশন করেন ডা. এমএম সুমনুল হক। অপারেশনের পর থেকে রোগীর অবস্থা খারাপ হতে শুরু করে।
রোগীর অবনতি ঘটলে তখন ডাক্তার দ্রুত রোগীকে ঢাকা বা বগুড়ায় নিয়ে যেতে বলেন। মূমূর্ষ অবস্থায় সে সময় তার স্ত্রীকে বগুড়া শহীদ জিয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করানো হলে সেখানকার চিকিৎসকরা জানিয়েছেন অপরেশনে ভুল করে জরায়ু কেটে ফেলা হয়েছে।
পরে ঢাকার হলী ফ্যামিলীতে, ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পরে ঢাকার লাল মাটিয়ার রয়েল হাসপাতালে ও সবশেষ মিরপুরের ডেল্টা মেডিকেল হাসপাতালে ঘুরেও ডাক্তারগণ তাকে ফেরত দিয়েছেন। দীর্ঘ ১৫ দিন চিকিৎসার পর রবিবার রাতে মারা যান রাশিদা।