আবারও রিমান্ডে শিশু তুহিনের বাবা ও চাচা

সুনামগঞ্জের দিরাই উপজেলায় নৃশংস ভাবে শিশু তুহিন হত্যা মামলায় পিতা ও চাচাকে আবারও রিমান্ডে নিয়েছে পুলিশ।

সোমবার বিকেল ৫টায় সুনামগঞ্জ জ্যেষ্ঠ জুডিশিয়াল আদালতের বিচারক শ্যাম কান্ত সিনহা তিন আসামির রিমান্ড মঞ্জুর করেন। নিহত তুহিনের পিতা আব্দুল বাসিরকে পাঁচ দিন ও দুই চাচাকে তিন দিন করে রিমান্ডে নিয়েছে পুলিশ।

পুলিশ জানায়,জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পুলিশের পক্ষ থেকে নিহত শিশুর পিতা আব্দুল বাসির ও চাচা আব্দুল মোছাব্বির ও জমশেদ আলীকে আদালতের কাছে সাত দিন করে রিমান্ডের আবেদন করা হয়। আদালত পিতা বাছির কে পাঁচ দিন এবং দুই চাচাকে তিন দিনের রিমান্ড আবেদন মঞ্জুর করেন আদালত।

এর আগে গত শুক্রবার পিতা আব্দুল বাসির ও দুই চাচাকে তিন দিন করে রিমান্ডে নিয়েছিল পুলিশ। পরে তাদের আদালতে হাজির করা আদালত তাদের জেল হাজতে প্রেরণ করেন।
অন্যদিকে গত মঙ্গলবার নিহতের আরেক চাচা নাসির উদ্দিন ও চাচাতো ভাই শাহরিয়ার ঘটনার সঙ্গে নিজেদের জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্ধি দেন।

হত্যাকাণ্ডের বিষয়ে অধিকতর জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তাদের আবারও রিমান্ডে আনা হয়েছে বলে জানান,দিরাই থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কে এম নজরুল।
আরো পড়ুন:
চট্টগ্রাম নগরীতে অঘোষিত গণপরিবহন ধর্মঘট, সাধারণ জনগণের ভোগান্তি
ফেসবুক একাউন্ট নিয়ে সতর্ককতা
কাল সারাদেশে হেফাজতের বিক্ষোভ

তিনি জানান, জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পুলিশের পক্ষ থেকে নিহত শিশুর বাবা আব্দুল বাছির ও চাচা আব্দুল মোছাব্বির ও জমশেদ আলীকে আদালতের কাছে সাত দিন করে রিমান্ডের আবেদন করা হয়। আদালত বাবার পাঁচ দিন এবং দুই চাচাকে তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

তিনি জানান, হত্যাকাণ্ডের বিষয়ে অধিকতর জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তাদের আবারও রিমান্ডে আনা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, রবিবার (১৩ অক্টোবর) রাত ৩টার দিকে সুনামগঞ্জের দিরাই উপজেলার রাজানগর ইউনিয়নের কেজাউড়া গ্রামে তুহিন হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। সোমবার ভোরে গাছে ঝুলানো অবস্থায় শিশুটির মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। এ সময় তুহিনের পেটে দুটি ধারালো ছুরি ঢুকানো ছিল। তার পুরো শরীর রক্তাক্ত ছিল, কান ও লিঙ্গ কর্তন অবস্থায় ছিল। পরে মঙ্গলবার নিহত তুহিনের মা ১০ জনকে আসামি করে দিরাই থানায় মামলা দায়ের করেন।

অক্টোবর ২১, ২০১৯ at ১৯:৪০:৩০ (GMT+06)
দেশদর্পণ/আহা/আক/দেপ্র/তআ