বুয়েটে ছাত্র রাজনীতি বন্ধ, ১৯ বহিষ্কার

বুয়েটে সকল ধরনের ছাত্র রাজনীতি বন্ধের সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। উপাচার্য নিজের উপর অর্পিত ক্ষমতাবলে এ সিদ্ধান্ত নেন। শুক্রবার (১১ অক্টোবর) বিকেল সাড়ে পাঁচটায় বুয়েট কেন্দ্রীয় অডিটোরিয়ামে আবরার ফাহাদ হত্যার ঘটনায় বুয়েট ভিসির শিক্ষার্থীদের সঙ্গে এক বৈঠকে এমন সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

বৈঠকে আরো সিদ্ধান্ত নেয়া হয়, আবরার ফাহাদ হত্যা মামলার এজাহারে থাকা ১৯ জনকে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে। আবরারের মামলা পরিচালনার সকল ক্ষরচ বহন করবে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। পাশাপাশি আবরারের পরিবারকে অর্থিক ক্ষতিপূরণ দেয়ারও ঘোষনা দিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

আরও পড়ুন :
বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ে চাকরির নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি
কার মাথায় উঠবে বিজয়ী ‘মুকুট’

বুয়েট কেন্দ্রীয় অডিটোরিয়ামে বুয়েটের অধ্যাদেশ অনুসারে ছাত্র রাজনীতির পাশাপাশি শিক্ষক রাজনীতিও নিষিদ্ধ করা হয়েছে । শুক্রবার (১১ অক্টোবর) বৈঠকে এবং আজ থেকেই কার্যকর হবে। এ বিষয়ে বুয়েটের উপাচার্য এবং ছাত্র পরিচালক (ডিএসডব্লিউ) এটি শিক্ষার্থীদের নিশ্চিত করেছেন।

এ বৈঠকে আবরারের খুনীদের ফাঁসিসহ শিক্ষার্থীদের ১০ দফা দাবি নিয়ে শুধু বুয়েটের বর্তমান শিক্ষার্থীদের (১৫ তম, ১৬ তম, ১৭ তম ও ১৮ তম ব্যাচ) সঙ্গে আলোচনা করবেন উপাচার্য।

এর আগে গত কয়েকদিন ধরে উপাচার্যের সঙ্গে আলোচনা করার চেষ্টা করেও ব্যর্থ হন শিক্ষার্থীরা। উপাচার্য গণমাধ্যম ছাড়া শিক্ষার্থীদের পক্ষে কয়েকজন প্রতিনিধির সঙ্গে আলোচনা করতে রাজি হলেও শিক্ষার্থীরা তাতে রাজি হননি।

পরে উপাচার্য গণমাধ্যম কর্মীদের সামনে আলোচনা করতে রাজি হয়েছেন। তবে উপাচার্য শর্ত দিয়েছেন আলোচনা সভা সরাসরি সম্প্রচার করা যাবে না এবং সংলাপ চলাকালে উপাচার্যকে কোনো প্রশ্ন করতে পারবেন না গণমাধ্যমকর্মীরা।

সেপ্টেম্বর ১১, ২০১৯ at ১৯:২৬:২৯ (GMT+06)
দেশদর্পণ/আহা/আক/ভোকা/আজা