শরীরে আগুন দিয়ে কলেজছাত্রীর আত্মহত্যার চেষ্টা

রাজশাহীতে পারিবারিক কলহের জেরে লিজা রহমান (২০) নামের এক কলেজছাত্রী শরীরে কেরোসিন ঢেলে আগুন লাগিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করেছেন। এ সময় ওই ছাত্রীকে ইঞ্জিনিয়ার রায়হানুল হক নামের এক শিক্ষক উদ্ধার করে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের ১৯নং বার্ন ইউনিটে ভর্তি করেন।

শনিবার (২৮ সেপ্টেম্বর) দুপুরে রাজশাহী মহিলা টিটিসি এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। পরে তার অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় বিকাল ৫টার দিকে পুলিশ প্রহরায় তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে বার্ন ইউনিটে পাঠানো হয়েছে বলে জানিয়েছেন চিকিৎসক ডা. অসীম কুমার।

চিকিৎসক জানায়, লিজার শরীরের সামনে কোমরের ওপর থেকে মুখমন্ডল শ্বাস নালীসহ প্রায় ৪৫ শতাংশ পুড়ে গেছে। লিজা রাজশাহী মহিলা কলেজের এইচএসসি ২য় বর্ষের শিক্ষার্থী। লিজা গাইবান্ধা জেলার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার আব্দুর লতিফের মেয়ে।

আরও পড়ুন:
শীঘ্রই বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় গড়ে তুলা হবে সুনামগঞ্জে -এমএ মান্নান
চৌগাছায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্মবার্ষিকী উদযাপন

জানা যায়, ২০শে জানুয়ারী নাচোল উপজেলার খানদুরা গ্রামের মোঃ খোকন আলীর ছেলে মোঃ সাখয়াত হোসেনের সাথে পারিবারিক ভাবে বিয়ে হয় লিজার। তিনি রাজশাহী সিটি কলেজের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র বলে জানায় লিজা।

বিয়ের পর থেকেই পারিবারিক কলহ লেগেই থাকত তাদের। এরই জেরে শনিবার বেলা ১১টার দিকে শাহমখদুম থানায় মামলা দিতে আসে লিজা। এ সময় মামলা নথিভুক্ত করতে দেরি করতে দেখে থানার বাইরে গিয়ে পৌনে ১২টার দিকে লিজা তার শরীরে কেরোসিন ঢেলে আগুন লাগিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করে।

মামলা নিতে দেরি করায় বিষয়ে জানতে চাইলে, শাহমখদুম থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মাসুদ রানা বলেন, ভিকটিম সাপোর্ট সেন্টারে তার মামলা এ্যান্ট্রি করা হয়েছে। মামলা লিখার সময় সে বলে আমি বাইরে গিয়ে একটু বুঝে আসি। এ বলে সে বাইরে গিয়ে শরীরে কেরোসিন ঢেলে আগুন লাগীয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করেছে। পরে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে রামেক হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করেন। উন্নত চিকিৎসার জন্য পুলিশসহ ঢাকায় পাঠানো হয়েছে বলে জানান ওসি।

সেপ্টেম্বর ২৮, ২০১৯ at ২১:০৭:২৯ (GMT+06)
দেশদর্পণ/আহা/আক/এমআর/কেএ