বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ভাড়া বাড়িতে রেখে গৃহবধুকে ধর্ষণ

বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে মাসব্যপি এক গৃহবধূকে ভাড়া বাড়িতে রেখে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। বৃহস্পতিবার (২৬ সেপ্টম্বর) রাত ২ টার দিকে রাজশাহী নগরীর মতিহার থানাধিন নতুন বুধপাড়া এলাকার একটি বাড়ি থেকে ওই নারীকে উদ্ধার করেছে মতিহার থানার এসআই ওয়ারেছ ও সঙ্গীয় ফোর্স।

এ সময় ধর্ষকের মা নার্গিস সুলতানা (৫০) ও তার বোন হাসি (৩০) কে আটক করা হয়েছে। তবে পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে পালিয়েছে ধর্ষক মোঃ রফিকুল ইসলাম রাজু (৩০), সে মতিহার থানাধিন নতুন বুধপাড়া এলাকার মৃত সিরাজুল ইসলামের ছেলে।

এ ঘটনায় শুক্রবার সকাল ৯টায় মতিহার থানায় ওই গৃহবধূ বাদি হয়ে একটি ধর্ষণ মামলা দায়ের করেছেন। ধর্ষিতা গৃহবধূ জানায়, কুষ্টিয়া জেলার চর-দৌলতপুর থানার উদায়ন নগর গ্রামের বাসিন্দা।

তার পিতার নাম মোঃ শুকুর আলী। প্রায় দুইমাস পূর্বে মোবাইল ফোনে রাজুর সাথে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে তার। এরই ধারাবাহিকতায় রাজু কুষ্টিয়া তাদের গ্রামে যায় এবং বিয়ের প্রস্তাব দেয় গৃহবধূকে।

আরও পড়ুন :
আগুনে পুড়ে ৪ লক্ষ টাকা ক্ষতি
বিশ্ব পর্যটন দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা

পরে সুযোগ বুঝে স্বামী সংসার ফেলে গৃহবধূ প্রেমের টানে প্রেমিক রাজুর হাত ধরে পালিয়ে আসে রাজশাহীতে। ধর্ষিতা আরো বলে, রাজশাহীতে আসার পর বিয়ের করা কথা বলে রাজু বুধপাড়া এলাকায় একটি ঘর ভাড়া করে সেখানে গত ১ মাস ৫ দিন ধরে আমার ইচ্ছার বিরুদ্ধে ধর্ষণ করে আসছে।

মতিহার থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) হাফিজুর রহমান জানায়, স্থানীদের দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে রাজু একটি মেয়েকে ভাড়া বাড়িতে রেখে দেহ ব্যবসা চালাচ্ছে।

ওসি আরো বলেন, এ বিষয়ে ওই নারী বাদি হয়ে ৯/১ (৩০) ধারায় ধর্ষণ মামলা দায়ের করেছেন। মামলা নং- ৬০, তাং: ২৭-০৯-২০১৯। ধর্ষণ কাজে সহযোগীতার অভিযোগ এবং বিয়ে না করে সংসার করার ঘটনায় পুলিশকে তথ্য না দেওয়ার অপরাধে রাজুর মা-বোনকে ওই মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে গতকাল দুপুর ১টার দিকে বিজ্ঞ আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

পাশাপাশি ওই গৃহবধূকে শারীরিক চিকিৎসার জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে ওসিসি ওয়ার্ডে ভর্তি বলেও জানায় ওসি।

সেপ্টেম্বর ২৭, ২০১৯ at ২০:৩৫:১৮(GMT+06)
দেশদর্পণ/আহা/ আক/এলএইচ/আজা