ভাইরাস জনিত রোগে আক্রান্ত শতশত গরু

যশোরের চৌগাছায় প্রায় প্রতিটি গ্রামে ভাইরাস জনিত রোগে শত শত গরু আক্রান্ত হচ্ছে। কৃষক ও গরুপালনকারীদের অনেকেই রোগটিকে গুটি বসন্ত ও অজানা রোগ বলে অভিহিত করছেন।

তবে উপজেলা প্রাণি সম্পদ অফিস বলছে এটি গুটি বসন্ত বা অজানা কোন রোগ নয়। এই রোগটি ভাইরাস জনিত। রোটির নাম লামপাই স্কিন ডিজিজ। এই রোগে আক্রান্ত হয়ে বিভিন্ন এলাকা থেকে গরুর মৃত্যুর খবর পাওয়া যাচ্ছে।

এ অবস্থায় কৃষক ও গরুপালনকারীদের মধ্যে আতংক ছড়িয়ে পড়েছে। তবে আতংকিত না হয়ে আক্রান্ত গরুকে স্বাভাবিক চিকিৎসা দেয়ার পরামর্শ দিয়েছেন উপজেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা।

সরেজমিন উপজেলার দক্ষিণ কয়ারপাড়া, লশকারপুর, রোস্তমপরু, ইছাপুর গ্রামে গিয়ে দেখা গেছে, প্রায় প্রতিটি বাড়িতে কোননা কোন গরু লামপাই স্কিন ডিজিজে আক্রান্ত হয়েছে।

আরও পড়ুন :
ঢাকা থেকে কুড়িগ্রাম আন্ত:নগর ট্রেন সার্ভিস চালুর সিদ্ধান্ত-রেলমন্ত্রী
সুন্দরবন পরিবহনের একটি বাস নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ৫০ যাত্রী নিয়ে খাদে

কৃষকরা জানান, বিগত এক মাস ধরে শতশত গরু এ রোগে আক্রান্ত হচ্ছে। বর্তমানে ভয়াবহ মাত্রায় ছড়িয়ে পড়েছে এ রোগ। দক্ষিণকয়ারপাড়া গ্রামে ১শত ২০ টি গরু এই রোগে আক্রান্ত হয়েছে।

গ্রামের কবিরুল ইসলাম জানান, প্রথম দিকে আক্রান্ত গরুর শরীরের বিভিন্ন স্থান ফুলে উঠছে। এরপর ওই ফুলা স্থানের মাংস পচে যাচ্ছে এবং সেখানে ক্ষতের সৃষ্টি হচ্ছে। এ ছাড়া আক্রান্ত গরুর পা ফুলে উঠছে।

কৃষক রমজান আলী, ওমর আলী, আব্দুর রশিদ, আব্দুল হালিম জানান, দুই সপ্তাহ আগে হঠাৎ করেই তাদের গরুর গায়ে ছোট ছোট ফোলা দেখতে পান। প্রথম দিকে বিষয়টি তারা গুরুত্ব দেননি। এর দুই এক দিন পর দেখতে পান ওই ফুলা স্থান থেকে মাংস পড়ে গেছে এবং সেখানে ক্ষতের সৃষ্টি হয়েছে।

কৃষক রমজান আলী জানান, তার ৯টি গরু আছে। তারমধ্যে ৫টি আক্রান্ত হয়। আক্রান্তের মধ্যে ১ লাখ টাকার মূল্যের একটি গাভী মারা গেছে। তিনি বলেন, ওই গাভীর একটি বাচ্চা আছে। সেই বাচ্চাটিও আক্রান্ত।

এদিকে উপজেলার জগন্নাথপুর, পুড়াপাড়া, জাহাঙ্গীরপুর, গরীবপুর, কাবিলপুর, বকশিপুর, মাধবপুর, বেড়গোবিন্দপুরসহ অধিকাংশ গ্রামে অজ্ঞাত রোগে গরু আক্রান্ত হয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে। এই রোগের ফলে কৃষক ও গরুপালনকারীদের মধ্যে দেখা দিয়েছে আতংক।

এ বিষয়ে উপজেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা প্রভাষ চন্দ্র গোস্বামী বলেন, রোগটি নিয়ে ভয়ের কোন কারন নেই। রোগটিকে লামপাই স্কিন ডিজিজ বলা হয়। এই রোগ হলে গরুর শরীর ফুলে যেতে পারে।

এমনকি ক্ষতের সৃষ্টি হতে পারে। রোগটি হলে গরুর তাপমাত্রা বেড়ে যেতে পারে। সেজন্য প্যারাসিটামল খাওয়াতে হবে। আর আক্রান্ত পশুকে ভালো পশু থেকে নিরাপদ দুরত্বে রাখতে হবে।

সেপ্টেম্বর ২৫, ২০১৯ at ১৬:১৮:৩০ (GMT+06)
দেশদর্পণ/আহা/এমআই/আজা