ধর্ষিতার বাবার কাছে ঘুষ দাবি তদন্ত কর্মকর্তার!

ধর্ষণের মামলার ‘খরচা’র কথা বলে ভিকটিমের বাবার কাছে ৫ হাজার টাকা ঘুষ চাওয়ার অভিযোগ উঠেছে তদন্ত কর্মকর্তা ঝিনাইদহের সুবর্ণা সারা ক্যাম্পের আইসি (ক্যাম্প ইনচার্জ) এসআই সৈয়দ আলীর বিরুদ্ধে।

মেয়েটির বাবার দাবি, বৃহস্পতিবার বিকেলে তার বাড়িতে গিয়ে ঘুষ দাবি করেন তদন্ত কর্মকর্তা। তবে এ অভিযোগ অস্বীকার করেছেন এসআই সৈয়দ আলী।

ভিকটিমের বাবা জানান, ১০ সেপ্টেম্বর পরিবারের লোকজন পার্শবর্তি জেলা যশোরের চৌগাছায় আত্মীয়ের বাড়িতে বেড়াতে যান। রাতে বাড়িতে মেয়ে একাই ছিল।

এ সুযোগে একই গ্রামের এবাদ আলীর ছেলে মশিয়ার রহমান তার মেয়েকে ধর্ষণ করে। এ ঘটনায় ১৭ সেপ্টেম্বর তিনি বাদী হয়ে কালীগঞ্জ থানায় মামলা করেন।

মামলার তদন্তের ভার দেয়া হয় সুবর্ণসারা ক্যাম্পের এসআই সৈয়দ আলীকে। তিনি বৃহস্পতিবার বাড়িতে এসে মামলার খরচার কথা বলে ৪-৫ হাজার টাকা ঘুষ দাবি করেন।

আরও পড়ুন:
লেকের পানিতে ভেসে উঠল অজ্ঞাত ব্যক্তির লাশ
দুদু’র বাড়িতে হামলার প্রতিবাদে ঝিনাইদহে প্রতিবাদ সভা

তিনি আরো বলেন, আমরা গরিব মানুষ, টাকা দিতে পারব না এ কথা বলার পর তদন্ত কর্মকর্তা ক্ষিপ্ত হয়ে বলেন, টাকা দিতে পারবেন না, তাহলে মামলা করেছেন কেন?

মামলার কাগজপত্র কেনা ও আলামত ঢাকাতে পাঠাতে আমার খরচ লাগবে। এসব কী আমি দেব? পরে  শুক্রবার আমাকে ফোন করে ক্যাম্পে দেখা করতে বলেন।

সেখানে যাওয়ার পর বলা হয়, টাকা না দিলে মামলার ফাইল এভাবে চাপা পড়ে থাকবে। কোনো কাজ হবে না।

পরে আলামত পাঠানো এবং মামলার কাগজপত্র কেনার কথা বলে আমার কাছ থেকে এক হাজার টাকা নিয়েছেন তিনি।

অভিযোগ অস্বীকার করে ক্যাম্প ইনচার্জ এসআই সৈয়দ আলী বলেন, মামলার এজাহারে সাক্ষীর নাম নেই। সাক্ষীদের নাম নেয়া ও পিও ভিজিট করতে তার বাড়িতে গিয়েছিলাম।

কোনো ঘুষ চাইনি। গতকাল ক্যাম্পে বসে ১ হাজার টাকা ঘুষ নেয়ার বিষয়টিও তিনি অস্বীকার করেন।

সেপ্টেম্বর ২১, ২০১৯ at ১২:২৫:৩০ (GMT+06)
দেশদর্পণ/আহা/আক/ভোকা/এএএম