NTRCA-এর স্বচ্ছ, নিরপেক্ষ ও মেধাভিত্তিক নিয়োগ প্রসংগে

101

সরদার ফরিদ আহমেদ
সম্প্রতি শিক্ষক নিয়োগদানে নিয়োজিত সংস্থা NTRCA দেশের সবচেয়ে বেশি সংখ্যক শিক্ষক নিয়োগের তালিকা প্রকাশ করেছে। বলা হচ্ছে দেশের সবচেয়ে ফেয়ার ও স্বচ্ছ এবং সর্বোচ্চ মেধাভিত্তিক নিয়োগ দেয়া হয়েছে। আমরাও আপত দৃষ্টিতে মেনে নিলাম। কিন্তু তারপরেও আমার কিছু কথা ও প্রশ্ন আছে। প্রথম প্রশ্নঃ NTRCA এই শিক্ষকদের কিভাবে মেধার পরীক্ষা নিলো?? প্রথম দিকে সবাই ভেবেছিলো এসব নিবন্ধন/টিবন্ধন এক সময় গিয়ে থাকবে না, আবার সব আগের নিয়মে চলবে তাই কেউ এর গুরুত্ব ওইভাবে দেয় নি। তাই প্রথম দিককার শিক্ষক নিবন্ধন পরীক্ষাগুলোর কথা আমরা সকলেই জানি। প্রায় শতভাগ প্রশ্ন ফাঁসের মধ্য দিয়ে প্রথমদিককার পরীক্ষাগুলো পার হয়েছে। প্রশ্ন ফাঁস বাদেও মাত্র ২০/৫০ হাজার টাকার বিনিময়েও শিক্ষক নিবন্ধনের সনদ পাওয়া গেছে এমনকি পরীক্ষা না দিয়েও সনদ পাওয়া গেছে টাকার বিনিময়ে। এর মাধ্যমে কিভাবে মেধার মূল্যায়ন করলেন?? দ্বিতীয় প্রশ্নঃ যারা সাইদীকে চাঁদে দেখানো আন্দোলন করে, যারা হরতাল-অবরোধের সময়ে বাসে, পরিবহনে পেট্রোল বোমা মেরে মানুষ হত্যা করেছে, বিভিন্ন নাশকতা মামলার আসামী, স্বাধীনতায় বিশ্বাস করে মা৷ জামাত-শিবিরের সরাসরি কর্মী, নানান সময়ে সরকার বিরোধী আন্দোলন করে সরকারের পতন চাই সেই সমস্ত মানুষগুলোকেও নিরপেক্ষ, স্বচ্ছ ও মেধার ভিত্তিতে নিয়োগ দেওয়ার মানে কি?? তাদের নিয়োগ দিয়ে তাদেরকে পুরস্কৃত করা হলো কি না?? তৃতীয় প্রশ্নঃ প্রতিষ্ঠান কমিটি ঘুষ খেয়ে অযোগ্য লোকদের নাকি নিয়োগ দেয়, এটা বলেছে NTRCA তাহলে প্রায় ৭ লাখ নিবন্ধনধারীদের কাছ থেকে প্রতিষ্ঠান পছন্দের নামে যে ফি নিচ্ছেন আপনারা এটার নাম কি?? আপনারা আবার নিয়ম করেছেন যত প্রতিষ্ঠানে পদ খালি আছে প্রতি প্রতিষ্ঠানেই আবেদন করতে হবে। এইরকম দেশে যত প্রতিষ্ঠানে কাঙ্খিত পদটি খালি আছে সেই প্রতিষ্ঠানে আবেদন করতে যেয়ে এক-একজন প্রার্থীর প্রায় ৩০/৪০ হাজার টাকা খরচ হয়ে গেছে। এতে করে হিসেব করে দেখা যায় ৭,০০,০০০x৪০,০০০=২৮,০০০,০০০,০০০/- টাকার একটা হিসাব সামনে আসে। তাহলে এই টাকাগুলোর নাম কি?? আর এই টাকা নেওয়ার পদ্ধতিটাও কি সঠিক কিনা?? চতুর্থ প্রশ্নঃ আপনাদের এই পদ্ধতি হলো সারা বাংলাদেশেই আপনার চাকরী করতে বাধ্য পার্থী। কথা হলো একজন শিক্ষকের বাড়ি কক্সবাজার কিন্তু তার চাকরী হলো চাপাইনবয়াবগঞ্জের এক প্রত্যন্ত অঞ্চলে, এখন সে ওখানে গিয়ে এই অল্প বেতনে চাকরী করবে কিভাবে?? মানবিক বিষয়গুলো কতখানিক বিবেচনা করা হলো?? পঞ্চম প্রশ্নঃ দেশের সবচেয়ে বড় শিক্ষক নিয়োগের ৫/৬ দিন পরেই আপনারা একটা বিজ্ঞপ্তি দিয়েছেন যে নন এমপিও এবং নন অনুমোদিত পদের এমপিও ভুক্তি ও তাদের চাকরী নিশ্চয়নে আপনারা কোন দ্বায় নিবেন না এবং ঘোষনা দিয়েছেন তারা কোনদিনও এমপিও ভুক্ত হবেন না। যাদের এমপিও ভুক্ত করবেন না তাদের কেন নিয়োগ দিলেন?? কেন তাদের কাছ থেকে পৃথক প্রতিষ্ঠানে আবেদনের নাটক সাজিয়ে প্রার্থী প্রতি ৩০/৪০ হাজার করে টাকা কেন নিলেন? কেন তাদের নিয়োগ দিয়ে চাকরী স্থায়ী না করে তাদের জীবন ও পরিবারকে দূর্বিষহ করে দিচ্ছেন?? তাই বলছি জাতি গঠনের কারখানা নামক এই খাতটিকে ধ্বংস করে দিবেন না। এই খাতটিকে নিয়ে আর ছিনিমিনি খেইলেন না। মনে রাখবেন এই খাতটি নষ্ট হলে নষ্ট হবে সমাজ, জাতি, দেশ।

লেখকঃ সরদার ফরিদ আহমেদ
সাবেক স্কুলছাত্র বিষয়ক সম্পাদক
যশোর জেলা ছাত্রলীগ

Print Friendly, PDF & Email