যশোরের ছয় আসনে ধানের শীষ প্রতীকসহ ৩১প্রার্থীর জামানত বাজেয়াপ্ত

159
Election bld

বিশেষ প্রতিনিধি, যশোর : যশোরের ছয়টি আসনে বিজয়ী নৌকার প্রার্থী ছাড়া ধানের শীষ প্রতীকসহ ৩১ জন প্রার্থীর জামানত বাজেয়াপ্ত হয়েছে। একাদশ সংসদ নির্বাচনে যশোরে ছয় আসনের বিপরীতে ৩৭ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বীতা করেন।

গণপ্রতিনিধিত্ব আইন-১৯৭২ অনুযায়ী কোনো প্রার্থী নির্বাচনে প্রদত্ত (কাস্টিং ভোট) ভোটের ১২ দশমিক ৫ শতাংশের কম ভোট পেলে তার জামানত বাজেয়াপ্ত হবে। সেই হিসেবে যশোরে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী ছাড়া কেউ শর্তানুযায়ী ভোট পাননি।

ফলে বিএনপির ছয় প্রার্থীসহ ৩১ জন পরাজিত প্রার্থীই তাদের প্রত্যেকে ২০ হাজার টাকার জামানত হারিয়েছেন।
যশোরের রিটার্নিং অফিসার ও জেলা প্রশাসক মো. আব্দুল আওয়াল স্বাক্ষরিত প্রাথমিক বেসরকারি ফলাফল দেখা গেছে, যশোর জেলায় মোট ২০ লাখ ৯২ হাজার ৪শ ৭২ জন ভোটারের মধ্যে ১৭ লাখ ২৫ হাজার ৫৩৪ জন ভোটাধিকার প্রয়োগ করেছে। যা গড়ে ৮৩ দশমিক ২০ শতাংশ ভোট পড়েছে।

এরমধ্যে-
যশোর-১ (শার্শা) আসনে ভোট পড়েছে ২ লাখ ২০ হাজার ৪৫টি। যা মোট ভোটের ৮৩ দশমিক ৪৮ ভাগ। এই আসনে জামানত হারিয়েছেন বিএনপির মফিকুল হাসান তৃপ্তি যার প্রাপ্ত ভোট ৪ হাজার ৯৮১, ইসলামী আন্দোলনের মো. বখতিয়ার রহমান যার প্রাপ্ত ভোট ১ হাজার ৩৩০ ও জাকের পার্টির সাজেদুর রহমানের প্রাপ্ত ভোট ১ হাজার ১৭৭।

যশোর-২ (ঝিকরগাছা-চৌগাছা) আসনে ৩ লাখ ৪৫ হাজার ৬২২ ভোট পড়েছে। যা মোট ভোটের ৮৫ দশমিক ৭৩ ভাগ। এই আসনে জামানত হারিয়েছেন ধানের শীষের প্রার্থী আবু সাঈদ মোহাম্মদ শাহাদাৎ হুসাইন পেয়েছেন ১৩ হাজার ৯৪০ ভোট, বাংলাদেশ জাতীয় পার্টির বিএম সেলিম রেজা পেয়েছেন ১ হাজার ২৫ ভোট, বাংলাদেশ সমাজতান্ত্রিক দলের আলাউদ্দিন পেয়েছেন ৫৯১ ভোট, ইসলামী আন্দোলনের মো. আসাদুজ্জামান পেয়েছেন ৩ হাজার ৩ ভোট, গণফোরামের এম আছাদুজ্জামান পেয়েছেন ৭ ভোট) ও জাতীয় পার্টির ফিরোজ শাহ্ পেয়েছেন ১হাজার ১৮২ ভোট।

আরোও পড়ুন: টিভি সাংবাদিকদের জন্য সুখবর

যশোর-৩ (সদর) আসনে ৪ লাখ ১ হাজার ১৩৬ জন ভোটাধিকার প্রয়োগ করেছেন। যা মোট ভোটের ৭৬ দশমিক ৬৫ ভাগ। এই আসনে জামানত হারিয়েছেন বিএনপির প্রার্থী অনিন্দ্য ইসলাম অমিত যার প্রাপ্ত ভোট ৩১ হাজার ৭১০, জাতীয় পার্টির মো. জাহাঙ্গীর আলম যার ভোট ১০ হাজার ৬৯, জাকের পার্টির মনিরুজ্জামান মনির পেয়েছেন ১ হাজার ৬৬৭ ভোট, বিকল্পধারার মারুফ হাসান কাজলের প্রাপ্ত ভোট ৯১৪ ও জেএসডির সৈয়দ বিপ্লব আজাদ’র প্রাপ্ত ২৫ ভোট।

যশোর-৪ (অভয়নগর-বাঘারপাড়া) আসনে ৩ লাখ ১৬ হাজার ৩শ ৩৮ জন ভোটাধিকার প্রয়োগ করেছেন। যা মোট ভোটের ৮১ দশমিক ৭৪ ভাগ। এ আসনে জামানত হারিয়েছেন বিএনপির প্রার্থী টিএস আইয়ুব। যার প্রাপ্ত ভোট ৩০ হাজার ৮শ ৭৪, জাতীয় পার্টির মো. জহুরুল হক পেয়েছেন ১হাজার ৯৬৬ ভোট, ইসলামী আন্দোলন নাজমুল হুদার প্রাপ্ত ভোট ৫ হাজার ৬৯৮, বাংলাদেশ জাতীয় পার্টির লে. ক. (অব.) এম শাব্বির আহমেদ পেয়েছেন ৭৪২ ভোট, বিকল্পধারা বাংলাদেশের নাজিম উদ্দিন আল আজাদ পেয়েছন ৯৯ ভোট, ন্যাশন্যাল পিপলস পার্টির মোহাম্মদ আলী জিন্নাহর প্রাপ্ত ১৮০ ভোট ও জাকের পার্টির লিটন মোল্লার প্রাপ্ত ভোট ৯০২ ভোট।

যশোর-৫ (মণিরামপুর) ২ লাখ ৭৫ হাজার ৭৪ জন ভোটার ভোট দিয়েছেন। যা মোট ভোটের ৮৬ দশমিক ২১ ভাগ। এ আসনে জামানত হারিয়েছেন ধানেরশীষের প্রার্থী মুহাম্মদ ওয়াক্কাস। তিনি পেয়েছেন ২৪ হাজার ৬২১ ভোট, জাতীয় পার্টির এমএ হালিম পেয়েছেন ৮৮৪ ভোট, ইসলামী আন্দোলনের ইবাদুল হক খালাসির প্রাপ্ত ভোট ২ হাজার ৭০৪, স্বতন্ত্র প্রার্থী কামরুল ইসলাম বারী পেয়েছেন ৮৫৭ ভোট, জাগপার নিজাম উদ্দিন অমিত পেয়েছেন ১২৪ ভোট ও জাকের পার্টির রবিউল ইসলামের প্রাপ্ত ৩৮৪ ভোট।

যশোর-৬ (কেশবপুর) আসনে ১ লাখ ৬৪ হাজার ৯৮৫ জন ভোট প্রদান করেছেন। যা মোট ভোটের ৮৫ দশমিক ২৩ ভাগ। এ আসনে জামানত হারিয়েছেন বিএনপির আবুল হোসেন আজাদ। তিনি ভোট পেয়েছেন ৫ হাজার ৬৫৩, ইসলামী আন্দোলনের আবু ইউসুফ বিশ্বাস পেয়েছেন ১হাজার ১৩০ ভোট, জাতীয় পার্টির মো. মাহবুব আলম পেয়েছেন ৩৪১ ভোট ও জাকের পার্টির মো. সাইদুজ্জামানের প্রাপ্ত ভোট ৩৮০।

দেশদর্পণ/একে/এসজে

Print Friendly, PDF & Email